কাপাসিয়ায় নব দম্পতির বিষপানে আত্মহত্যা

প্রকাশ : ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় প্রেম করে নিজেদের পছন্দে বিয়ে করার ২১ দিনের মাথায় এক নব দম্পতি বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার আড়াল গ্রামে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে থানা পুলিশ ওই নব দম্পতির লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

জানা যায়, উপজেলার সম্মানিয়া ইউনিয়নের আড়াল গ্রামের হানিফ মিয়ার স্কুলপড়–য়া কন্যা শাহীনা আক্তার নিপার (১৬) সঙ্গে কড়িহাতা ইউনিয়নের ইকুরিয়া গ্রামের আফজাল হোসেন ভূঁইয়ার স্কুলপড়–য়া ছেলে হৃদয় হোসেনের (১৭) গত দুই বছর আগে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। উভয়েই আগামী এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। পরিবারের কাউকে না জানিয়ে তারা গত ২১ দিন আগে গাজীপুর আদালতে গিয়ে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে হলফনামা দিয়ে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়। জানাজানি হওয়ার পর দুই পরিবারের অভিভাবকরা তাদের প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ের বিষয়টি গোপন রাখতে সম্মত হয়।

নিপার বাবা হানিফ মিয়া বলেন, ‘গত ৫ দিন আগে হৃদয় হোসেন কাউকে না জানিয়ে আমার মেয়েকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায়। এ কারণে ছেলের মা রিমা আক্তার আমার কন্যা নিপা ও আমাদের পরিবারের লোকজনকে খারাপ ভাষায় গালিগালাজ ও দুর্ব্যবহার করে। সেটা সহ্য করতে না পেরে নিপা আমাদের বাড়িতে চলে আসে।’

মেয়ের মা রিনা বেগম জানান, হৃদয় হোসেন গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদের বাড়িতে আসে। খাবার খেয়ে উভয়ে ঘরে অবস্থান করছিল। বিকেল ৫টার দিকে তারা বিষপান করে গলাগলি ধরে ঘর থেকে বের হয়ে বারান্দায় এসে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এ সময় গুরুতর অবস্থায় তাদের পাশর্^বর্তী মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথে শাহীনা আক্তার নিপা মারা যায়। পরে হৃদয়কে দ্রুত উত্তরা হাই কেয়ার হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে মারা যায়। তাদের অকালমৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

ছেলের পিতা আফজাল হোসেন বলেন, ‘ছেলেমেয়ে উভয়েই অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় আইনগত বাধা থাকার কারণে তাদের প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। আমাদের অজান্তে ছেলে তাদের বাড়িতে গিয়ে কী কারণে বিষপান করেছে, তা আমাদের জানা নেই।’

কাপাসিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবুবকর সিদ্দিক জানান, লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

 

"