দুই জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধ’ নিহত ১, গুলিবিদ্ধ ১

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত এবং রাজশাহীর গোদাগাড়িতে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এরা দুইজনেই মাদক ব্যবসায়ী বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্টÑ

গাইবান্ধা : গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত হয়েছে। উপজেলার জামাল গ্রামে গত সোমবার রাত ৩টার দিকে বন্দুকযুদ্ধ হয়। নিহতের নাম আবদুস সালাম ওরফে ঠসা সালাম (৫০)। সে জেলার শীর্ষ মাদক বিক্রেতা বলে জানিয়েছে র‌্যাব। সালাম সুন্দরগঞ্জের সাতগিরি পূর্বপাড়া (ফকিরপাড়া) গ্রামের সফু করাতির ছেলে। ঘটনাস্থল থেকে গুলিভর্তি একটি বিদেশি পিস্তল, ২০ বোতল ফেনসিডিল ও ১০ কেজি গাঁজা উদ্ধারের কথা জানিয়েছেন র‌্যাব-১৩ গাইবান্ধা ক্যাম্পের মিডিয়া অফিসার এএসপি খন্দকার গোলাম মোর্তজা। তিনি বলেন, জামাল গ্রামে মাদক কেনাবেচা করার খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় মাদক বিক্রেতারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে। ‘এক পর্যায়ে মাদক বিক্রেতারা পিছু হটলে ঘটনাস্থলে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি আবদুস ছোবহান জানান, সালামের জেলা পুলিশের একজন তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে সুন্দরগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন থানায় ২৮টির বেশি মাদক মামলা রয়েছে। এর আগে একাধিকবার আটক হয়ে সে কারাগারে থেকেছে।

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) : রাজশাহীতে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক মাদক ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তার নাম মো. ইবরাহিম (৩৫)। রাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌর এলাকার মহিষালবাড়ি মহল্লার বাসিন্দা তিনি, বাবার নাম মো. ইসরাফিল। গত সোমবার রাত ৩টার দিকে গোদাগাড়ীর সাহাব্দিপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) আবদুর রাজ্জাক খান জানান, মাদক কেনাবেচার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোদাগাড়ী থানা পুলিশের একটি দল সাহাব্দিপুর এলাকার একটি ইটভাটার কাছে অভিযান চালায়। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষায় পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। কয়েক মিনিট গোলাগুলির পর কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে গেলেও আহত অবস্থায় পড়ে থাকেন ইবরাহিম। তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ইবরাহিমের বাম পায়ে গুলি লেগেছে। তিনি আরো জানান, ঘটনাস্থল থেকে ম্যাগাজিন ও পাঁচ রাউন্ড গুলিসহ একটি বিদেশি পিস্তল এবং ৫০০ গ্রাম হেরোইন জব্দ করা হয়েছে। ইবরাহিমের বিরুদ্ধে থানায় মাদক সংক্রান্ত দুইটি মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা, মাদক এবং অস্ত্র রাখার অভিযোগে মামলা করেছে পুলিশ।

 

"