দাম বেড়েছে কাঁচামরিচ পেঁয়াজ সবজির

প্রকাশ : ১৪ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর বাজারে সবজি, মাছ, মাংস ও ডিমের দাম বেড়েছে। বেড়েছে কাঁচামরিচ ও পেঁয়াজের দামও। এর মধ্যে সবজিতে বেড়েছে ৫-২০ টাকা পর্যন্ত। পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে প্রায় ৫ টাকা করে। আর মরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ২০-৩০ টাকা। তবে চাল, ডাল, তেল ও মসলা জাতীয় পণ্যের দাম একই রয়েছে। রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্রই দেখা গেছে।

গতকাল সরেজমিনে বাজার ঘুরে দেখা গেছে, হাতিরপুল বাজারে প্রতিকেজি উচ্ছে বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়, করলা ৬০ থেকে ৭০ টাকায়, বেগুন ৬০ থেকে ৮০ টাকা, কাকরোল ৭০, শসা ৫০, পটোল ৫০, ঝিঙা ৫০, ধুন্দল ৫০, লাউ (প্রতিটি) ৬০, টমেটো ৮০ থেকে ১০০, গাজর ৯০ থেকে ১২০, কাঁচা মরিচ ১৪০, পেঁপে ৪০, বরবটি ৬০, কচুর লতি ৬০ থেকে ৭০, কচুরমুখী ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতি পিস ফুলকপি ৭০ টাকা ও বাঁধা কপি ৮০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা যায়।

হাতিরপুল বাজারের সবজি বিক্রেতা ইয়াছিন জানান, বিভিন্ন জায়গায় বর্ষার কারণে সবজি আসতে পারছে না। তা ছাড়া সবজির ভরা মৌসুমও না। ফলে পাইকারি বাজারে সব ধরনের সবজির দাম বাড়তি। পাইকারি বাজারে দাম বাড়তি হওয়ায় খুচরাতেও এর প্রভাব পড়ছে। বাজার করতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী আবদুল মোমেন জানান, গত সপ্তাহের চেয়ে কোনো কোনো সবজির দাম কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। টমেটো গত সপ্তাহে কেজিপ্রতি ৮০ টাকা কিনেছেন তিনি। এখন ১০০ টাকা চাওয়া হচ্ছে। গাজর কেজিতে ২০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে।

শান্তিনগর বাজারে দেখা যায়, মাছ ও মাংসের দামও বেড়েছে। প্রতিকেজি মাংসে ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। আর মাছ ভেদে বেড়েছে ২০-৫০ টাকা পর্যন্ত। এ বাজারে গরুর মাংস প্রতিকেজি ৫২০ টাকা, খাসির মাংস ৮০০ টাকা, মুরগি ব্রয়লার ১৬০ টাকা, লেয়ার ২৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিকেজি রুই ২৫০ থেকে ৪৫০ টাকা, পাঙাস ১৪০ থেকে ২০০, চিংড়ি ৬০০ থেকে ১২০০, টেংরা ৮০০ থেকে ১০০০, শিং ৬০০ থেকে ১০০০, মাগুর (দেশি) ৭০০ থেকে ১০০০, থাই কৈ ২০০ থেকে ২৫০, কৈ (দেশি) ৮০০, তেলাপিয়া ১৮০, বাইম ৮০০ থেকে ১০০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মালিবাগ বাজার ঘুরে দেখা যায়, ডিম ভেদে প্রতি ডজনের দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। ব্রয়লার মুরগির ডিম প্রতি ডজন ৯৫ টাকায়, দেশি মুরগির ডিম ১৪০ টাকা এবং হাঁসের ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়। তবে এসব বাজার ঘুরে দেখা গেছে, চাল, ডাল, তেল ও মসলা জাতীয় পণ্যের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

"