নন-এমপিও শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি

২৩ জুনের মধ্যে সিদ্ধান্ত না হলে কঠোর আন্দোলন

প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ জুনের মধ্যে এমপিওভুক্তির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না হলে নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা অনশনসহ কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুশিয়ারি দিয়েছেন। অবস্থান কর্মসূচির নবম দিনে তারা এ কথা বলেন। পূর্বঘোষণা অনুযায়ী গতকাল সোমবার সকালে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশন। ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের উল্টো দিকের সড়কে তারা অবস্থান নেন। গত ১০ জুন থেকে টানা নবম দিনের মতো আন্দোলন করছেন।

নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মাহমুদুন্নবী বলেন, ‘২৩ তারিখ পর্যন্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ। এর মধ্যে যদি সরকার কোনো সিদ্ধান্তে না আসে, তাহলে আমরা বাধ্য হব অনশনসহ কঠিন কোনো কর্মসূচিতে যেতে।’ রোজা ও ঈদের সময়টায় তারা আধাবেলা কর্মসূচি দিলেও গতকাল থেকে লাগাতার অবস্থান নেন। এর আগে একই দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনশন কর্মসূচিতে নামে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশন।

২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত অনশন করার পর প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে তারা অনশন ভঙ্গ করে ফিরে যান। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা তখন তাদের দাবি পূরণের প্রতিশ্রুতি দেন। সারা দেশে বর্তমানে সাড়ে সাত হাজার নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে পাঁচ হাজার ২৪২টি স্কুল, কলেজ ও মাদরাসাকে।

এবারের ২০১৮-১৯ বাজেটে এমপিওভুক্তির বিষয়ে সুস্পষ্ট কিছু না থাকায় শিক্ষকরা আবার আন্দোলনে নামেন। এরপর ১১ জুন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সচিবালয়ে এক অনুষ্ঠানে বলেন, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হবে। বাজেটে উল্লেখ না থাকলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্য যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, সেটা ফয়সালা করে এমপিওভুক্ত করা হবে।

তবে আন্দোলনরত শিক্ষকরা বলছেন, শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে একাধিকবার আশার কথা শুনেছেন। কিন্তু তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় এখন মন্ত্রীর কোনো কথায় তারা আশ্বস্ত নন। খুলনা থেকে আসা শিক্ষক গাজী মজিবর রহমান বলেন, ‘উনি বারবার আশা দেন। কিন্তু এখন আর ওনার ওপর ভরসা রাখতে পারছি না। প্রধানমন্ত্রী যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তার বাস্তবায়ন চাই।’ সংগঠনটির সভাপতি গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী অন্তত ২৭ বার আমাদের আশা দিয়েছেন। এখন আর ওনার কথায় আশ্বস্ত হতে পারছি না। সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ঘোষণা চাই।’ এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১২ জুন এমপিও নীতিমালা ২০১৮ ঘোষণা দেয়। এ নীতিমালা নিয়েও আন্দোলনরত শিক্ষকরা আপত্তি জানিয়েছেন। বিভাষ চন্দ্র নামের এক শিক্ষক বলেন, যে নীতিমালা, সেটার বাস্তবায়ন করতে গেলে ৫০০ স্কুলও এমপিওভুক্ত হবে না।

"