পূজার বিশেষ খাবার

প্রকাশ : ১২ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

রান্নাবান্না ডেস্ক

পূজায় থাকে খাবারদাবারের বিশেষ আয়োজন। পছন্দের রান্নার পাশাপাশি ঐতিহ্যবাহী রান্নাও করেন অনেকে। এমন কয়েকটি খাবার নিয়ে আজকের আয়োজন।

পায়েস

উপকরণ : গরুর দুধ দুই লিটার। ১০টি করে এলাচি ও দারুচিনির টুকরা। চার কাপ চিনি, এক কাপ পোলাওয়ের চাল, কিশমিশ, কাঠবাদাম ও ঘি।

প্রস্তুত প্রণালি : দুধের সঙ্গে দারুচিনি ও এলাচ মিশিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন। তারপর শুকনো কাপড় দিয়ে ঘষে ঘষে পোলাওয়ের চাল পরিষ্কার করুন। চাল ধোয়া যাবে না। এরপর পরিষ্কার চাল ঘি দিয়ে মাখিয়ে রাখুন। গরম দুধ চুলায় পাঁচ মিনিট ফুটিয়ে তার মধ্যে ঘি দিয়ে মাখানো চাল ছেড়ে দিন। এভাবে মিনিট পনেরো জ্বাল দিন। চালটা সেদ্ধ হয়ে নরম হয়ে এলে চিনি ছেড়ে দিয়ে মিশিয়ে দিন। চাইলে এই সময় কাঠবাদাম ও কিশমিশ দেওয়া যেতে পারে। চিনি দেওয়ার দুই-তিন মিনিট পর নামিয়ে ফেলতে হবে পায়েস। নামানোর আগ মুহূর্তে এলাচি দানার গুঁড়া দেওয়া যেতে পারে।

মুগডালের শুকনো খিচুড়ি

উপকরণ: ১ কাপ বাসমতী চাল, আধা কাপ ভাজা মুগডাল, পরিমাণমতো পাঁচফোড়ন, আদা কুচি পরিমাণমতো, সয়াবিন তেল, লবণ ও হলুদের গুঁড়া, শুকনো মরিচ, কাঁচা মরিচ ও তেজপাতা।

প্রস্তুত প্রণালি : চাল ও ডাল আলাদা করে ধুয়ে নিন। পাত্রে সয়াবিন তেল ঢেলে গরম করে তেজপাতা ও শুকনো মরিচ নেড়েচেড়ে পাঁচফোড়ন দিয়ে দিন। হালকা ভাজা হয়ে গেলে আদা কুচি ছেড়ে দিন। বাদামি রং হলে তেলের মধ্যে চাল ও ডাল দিয়ে দিন। এরপর পরিমাণমতো লবণ ও এক চা-চামচ হলুদের গুঁড়া দিয়ে চালটা ভেজে নিন। এবার তিন কাপ পানি দিয়ে ঢেকে দিন। মাঝারি আঁচে মিনিট দশেক জ্বাল দিলে পানি কমে আসবে। তখনই বুঝতে হবে চাল সেদ্ধ হয়ে নরম হয়ে এসেছে। চুলা থেকে নামানোর আগে কয়েকটি কাঁচা মরিচ লম্বালম্বি করে কেটে খিচুড়ির ওপর ছড়িয়ে দিতে হবে। খিচুড়ি পরিবেশনের সময় মাছ ভাজি, বেগুন ভাজি বা লুচি দেওয়া যেতে পারে।

কষানো খাসির মাংস

উপকরণ : খাসির মাংস আধা কেজি, টক দই ১০০ গ্রাম। পেঁয়াজ বাটা ও পেঁয়াজ কুচি, আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরা বাটা পরিমাণমতো। হলুদের গুঁড়া ও শুকনা মরিচ, এলাচি দানা, সাত-আটটা দারুচিনি, সয়াবিন তেল ও লবণ পরিমাণমতো।

প্রস্তুত প্রণালি : টকদই, পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরা বাটা দিয়ে মাংস মাখিয়ে রেখে দিন আধা ঘণ্টা। পাত্রে তেল নিয়ে গরম করে তাতে পেঁয়াজ কুচি, এলাচি দানা, দারুচিনি দানা ফাটিয়ে ছেড়ে দিন। পেঁয়াজ বাদামি হয়ে এলে তাতে মাংস ছেড়ে দিন। ১৫-২০ মিনিট নাড়াচাড়া করুন। তেল মাংসের ওপর উঠে এলে দুই কাপ পানি দিয়ে মিনিট দশেক জ্বাল দিন। মাংস সেদ্ধ হয়ে গেলে নামানোর দুই মিনিট আগে কয়েকটি কাঁচা মরিচ মাঝখানে লম্বালম্বি কেটে ছেড়ে দিন। নামিয়ে মাংসের ওপর টমেটো ও ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে দিয়ে পরিবেশন করুন।

লাবড়া

উপকরণ : মিষ্টি কুমড়া, বেগুন, আলু, পেঁপে, মুলা, বরবটি, ফুলকপি, কাঁকরোল, পটোল এবং বাজারে পাওয়া যায় এমন যেকোনো সবজি এক কাপ করে। তেজপাতা, পাঁচফোড়ন, শুকনা মরিচ, ছ্যাঁচা আদা, ধনে গুঁড়া, তেল বা ঘি, হলুদের গুঁড়া, লবণ ও কাঁচামরিচ।

প্রস্তুত প্রণালি : সব সবজি ছোট ছোট টুকরা করে কেটে নিন। পাত্রে পরিমাণমতো তেল বা ঘি ছড়িয়ে দিন। তেল একটু গরম হয়ে এলে শুকনা মরিচ ও তেজপাতা দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়–ন। লাল হওয়ার পর পাঁচফোড়ন ও ছ্যাচা আদাটা দিন। একটু ভেজে নিয়ে সব সবজি ঢেলে দিয়ে হলুদের গুঁড়া ও লবণ দিয়ে নাড়–ন। বাড়তি ঝাল খেতে চাইলে একটু মরিচের গুঁড়াও দিতে পারেন। কিছুক্ষণ নাড়ার পর সবজি থেকে পানি বের হয়ে এলে ঢেকে দিন। মাঝেমধ্যে ঢাকনা খুলে নাড়াচাড়া করুন। সবজি গলে যাওয়ার পর ধনেগুঁড়া ও লম্বা করে কাটা দু-তিনটি কাঁচামরিচ দিয়ে দিন। দু-তিন মিনিট রেখে একটু ঘি ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।

 

 

"