নানা জেলার মুখরোচক খাবার

প্রকাশ : ১৮ মে ২০১৮, ০০:০০

রান্নাবান্না ডেস্ক

বিশেষ সময়ে বা উৎসবে একেক অঞ্চলের মানুষ একেক ধরনের খাওয়াকে প্রাধান্য দেয়। আর পরিবেশগত কারণেও কারো কারো খাওয়ার ধরন-ধারণে থাকে নানা মাত্রা। এমন কয়েকটি খাবার নিয়ে আজকের আয়োজন। জেনে নিন কীভাবে তৈরি করতে হবে।

পাচন, চট্টগ্রাম

উপকরণ

সবজি পেঁপে, জালি লাউ, পটোল, মিষ্টি কুমড়া, গাজর, কাঁচা কাঁঠাল, কলাগাছের ভেতরের শাঁসÑসব একসঙ্গে টুকরো করা ৫ কাপ, মুগ, মসুর ও খেসারি ডাল মিলিয়ে ২ কাপ, পেঁয়াজকুচি আধাকাপ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া ২ চা চামচ, কাঁচামরিচ ১০টি, তেজপাতা ৪টি, এলাচ ৩টি, তেল আধা কাপ, দারুচিনি ২ টুকরা, পাঁচফোড়ন ১ চা চামচ, ঘি ২ টেবিল চামচ, ধনেপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ, লবণ ১ চা চামচ, আস্ত শুকনা মরিচ ৫টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

সব সবজি ও ডাল একসঙ্গে লবণ, হলুদ, আদা, রসুন বাটা দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। কড়াইয়ে তেল ও ১ টেবিল চামচ ঘি গরম করে পাঁচফোড়ন, তেজপাতা, এলাচ, দারুচিনি, শুকনা মরিচ, পেঁয়াজ কুচি দিয়ে লাল করে ভেজে এর মধ্যে সবজি দিন। নামানোর আগে কাঁচামরিচ, ধনেপাতা ও বাকি ঘি দিয়ে নামিয়ে নিন।

নোনা ইলিশ পাতুরি, কুমিল্লা

উপকরণ

নোনা ইলিশ ২৫০ গ্রাম, লাউ বা কুমড়াপাতা ১০টি, পেঁয়াজকুচি ২ কাপ, রসুনকুচি ৫০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, মরিচগুঁড়া ১ চা চামচ, কাঁচামরিচ কুচি ৫টি, লবণ একচিমটি, তেল সিকি কাপ, সুতা প্রয়োজনমতো।

যেভাবে তৈরি করবেন

মাছ এক ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজ, রসুন দিয়ে নরম করে ভাজুন। তেলের মধ্যে একে একে সব মসলা দিন। এরপর মাছ দিয়ে নাড়তে থাকুন। মাছ, মসলা মিশে গেলে নামিয়ে কাঁটা বেছে নিন। শাকের পাতা ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখুন। ২ থেকে ৩টি শাকের পাতার মাঝখানে রান্না করা মাছ দিয়ে মুড়িয়ে সুতা দিয়ে বেঁধে দিন। এভাবে সবগুলো তৈরি করুন। তাওয়ায় সামান্য তেল দিয়ে গরম করে পাতাগুলো এপিঠ-ওপিঠ ভেজে ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

শুঁটকি সুরা, সিলেট

উপকরণ

ছোট ট্যাংরা মাছ শুঁটকি ১০০ গ্রাম, লাউশাক ১ আঁটি, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদগুঁড়া আধা চা চামচ, মরিচগুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচামরিচ ৪টি, লবণ আধা চা চামচ, তেল ৪ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

শুঁটকি ও শাক ভালো করে ধুয়ে নিন। কড়াইয়ে তেল দিয়ে সব মসলা কষিয়ে শুঁটকি দিয়ে ভালো করে নেড়ে ২ কাপ পানি দিন। পানি ফুটে উঠলে শাক দিন। শাক সিদ্ধ হলে কাঁচামরিচ দিয়ে নামিয়ে নিন।

পাটশাকের গিটটু ভুনা, রংপুর

উপকরণ

গুচ্ছ বড় পাটপাতা ২৫টি, মসুর ডাল আধা কাপ, পেঁয়াজকুচি ৪ টেবিল চামচ, রসুনকুচি ২ টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ ফালি ৪টি, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, তেল সিকি কাপ, লবণ ১ চা চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

পাটপাতা ধুয়ে পানি ঝরিয়ে কয়েকটি গুচ্ছ পাট পাতা একত্রে গিঁট দিয়ে নিন। ডাল ভালো করে ধুয়ে নিন। কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজ, রসুন, মরিচ দিন। মসলা ভালো করে কষিয়ে ৩ কাপ পানি দিয়ে ঢেকে দিন। ডাল সিদ্ধ হলে শাক দিন। শাক সিদ্ধ হয়ে ডালের সঙ্গে মিশে গেলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

শুঁটকি বিরিয়ানি, গাজীপুর

উপকরণ

মলা মাছের শুঁটকি ২৫০ গ্রাম, পোলাও চাল ২৫০ গ্রাম, পেঁয়াজকুচি আধা কাপ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ২ চা চামচ, ধনেগুঁড়া ১ চা চামচ, জিরা বাটা আধা চা চামচ, টক দই ৪ টেবিল চামচ, বাদাম বাটা ১ চা চামচ, জায়ফল ও জয়ত্রি বাটা মিলিয়ে সিকি চা চামচ, হলুদগুঁড়া আধা চামচ, মরিচগুঁড়া ১ চা চামচ, কাঁচামরিচ ৫টি, বিরিয়ানি মসলা ১ চা চামচ, লবণ দেড় চা চামচ, তেল আধা কাপ, ঘি ২ টেবিল এলাচ, দারুচিনি ২টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

শুঁটকি ভালো করে ধুয়ে নিন। পোলাও চাল পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কড়াইয়ে তেল গরম করে এলাচ, দারুচিনি দিয়ে একে একে সব মসলা ভালো করে কষিয়ে শুঁটকি দিন। অল্প আঁচে শুঁটকি কষাতে থাকুন। অন্য একটি হাঁড়িতে পোলাও রান্না করুন। ওপর থেকে পোলাও অর্ধেক উঠিয়ে ভুনা শুঁটকি দিয়ে বিরিয়ানি মসলা দিয়ে বাকি পোলাও ঢেলে দমে রাখুন। ৫-১০ মিনিট পর নামিয়ে পরিবেশন করুন।

মলিদা, বরিশাল

উপকরণ

পোলাও চাল বাটা সিকি কাপ, নারিকেল বাটা ২ টেবিল চামচ, নারিকেলের পানি ২ কাপ, নারিকেলের ফোপরা ১টি, আদা বাটা আধা চা চামচ, লবণ ১ চা চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

সব উপকরণ ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। বাটিতে ঢেলে মুড়ি দিয়ে পরিবেশন

করুন।

"