এই গরমে নিরামিষ

প্রকাশ : ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০

রান্নাবান্না ডেস্ক

এই গরমে আমিষ-জাতীয় খাবার একটু কম খাওয়াই ভালো। এতে শরীর ভালো থাকে। কিন্তু নিরামিষ যেন ঠিক আমিষের মতো মজা হয় না। আর নিরামিষের তেমন মুখরোচক রেসিপিও জানেন না অনেকেই। তাই, চলুন আজ দেখে নেই কয়েকটি মুখরোচক নিরামিষ রান্নার রেসিপি।

আলু-মটর

উপকরণ : ৩টা মাঝারি আলু, চামড়া ছাড়িয়ে ১ ইঞ্চি কিউব করে কাটা। আধা কাপ মটরশুঁটি। তিন টেবিল চামচ তেল। একটা মাঝারি পেঁয়াজ কুচি করা। লবণ স্বাদমতো। ২-৩টি কাঁচামরিচ। ১ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি। ২ কোয়া রসুন। সামান্য আদা কুচি। ৩টা টমেটো কিউব করা। ১ টেবিল চামচ ধনেগুঁড়ো। ১ টেবিল চামচ কাশ্মীরি মরিচগুঁড়ো। সিকি চা চামচ হলুদগুঁড়ো। আধা চা চামচ গরম মসলাগুঁড়ো ও আধা চা চামচ আস্ত জিরা।

প্রস্তুত প্রণালি : একটা ওভেন-প্রুফ বোলে এক চিমটি লবণ এবং এক টেবিল চামচ পানি দিন মটরশুঁটির সঙ্গে। এটাকে ঢেকে মাইক্রোওয়েভে গরম করে নিন ২ মিনিট। এতে মটরশুঁটির মিষ্টি ভাবটা চলে যাবে। এরপর বের করে রাখুন। একটা প্রেশার কুকারে তেল মাঝারি আঁচে গরম করে নিন। এতে দিন জিরা, লম্বালম্বি চেরা কাঁচামরিচ এবং পেঁয়াজ। জিরা ফুটতে থাকলে এতে দিন ধনেগুঁড়ো, গরম মসলাগুঁড়ো, মরিচগুঁড়ো, হলুদগুঁড়ো এবং মিশিয়ে সাঁতলে নিন ২ মিনিট। পেঁয়াজ নরম হতে দিন। এ সময়ের মধ্যে কিউব করা টমেটো, আদা ও রসুন ব্লেন্ড করে পিউরি করে নিন। এই পিউরি প্রেশার কুকারে দিয়ে মিশিয়ে নিন মসলার সঙ্গে। দুই মিনিট ভালো করে রান্না করে নিন এই টমেটোর পেস্ট। এরপর দিয়ে দিন আলু, সেদ্ধ মটরশুঁটি, পৌনে এক কাপ পানি এবং লবণ। ভালো করে মিশিয়ে নিন। ঢাকনা চাপা দিয়ে রান্না হতে দিন তিনটা শিষ দেওয়া পর্যন্ত। এরপর চুলা বন্ধ করে দিন। প্রেশার কুকার বন্ধ করে রাখুন, খুলবেন না। মিনিট পাঁচেক রেখে দিন, এর মাঝে কক্ষ তাপমাত্রায় ঠা-া হয়ে আসবে প্রেশার কুকার। এরপর ঢাকনা খুলে একবার নেড়ে মিশিয়ে নিন। এতে ধনেপাতা মিশিয়ে নিন এবং পরিবেশন করুন গরম গরম। যেকোনো রুটি বা পরোটার সঙ্গে এই মাখা মাখা সবজি দারুণ লাগবে।

পুঁই ডালের চচ্চড়ি

উপকরণ : পুঁইশাক ২৫০ গ্রাম। ডাল একমুঠো। আলু (ছোট) দুটা। হলুদগুঁড়ো ১/৪ চা চামচ। ধনেগুঁড়ো ১ চিমটি। লবণ স্বাদমতো। তেল পরিমাণমতো। পেঁয়াজ ১টি। কাঁচামরিচ ৪-৫টি।

প্রস্তুত প্রণালি : প্রথমে এক চিমটি হলুদ আর লবণ দিয়ে ডাল অল্প সেদ্ধ করে নিন। তারপর একটি কড়াইতে প্রথমে পেঁয়াজ কুচি আর কাঁচামরিচ অল্প ভেজে নিয়ে তাতে ছোট ছোট টুকরো করে কাটা আলু দিয়ে ভেজে নিন। একটু পরে আলুতে হলুদ আর ধনেগুঁড়ো দিয়ে কয়েক সেকেন্ড ভাজুন। তারপর এতে পুঁইশাকগুলো দিয়ে দিন। স্বাদমতো লবণ দিন। কম আঁচে ভেজে রান্না করুন। শাক সেদ্ধ হয়ে এলে ডাল দিয়ে দিন। ভালোভাবে মিশিয়ে কম আঁচে আরো কিছুক্ষণ নেড়ে নামিয়ে ফেলুন।

পটোলের দোলমা

উপকরণ : পটোল ৫-৬টা (চামড়া ছাড়ানো ভেতরের বিচি ফেলে দিতে হবে)। পেঁয়াজ কুচি হাফকাপ। ঢাকাই পনির/কটেজ চিজ হাফ কাপ। কাঁচামরিচ ৩-৪টা। গরম মসলাগুঁড়ো হাফ চা চামচ। হলুদগুঁড়ো হাফ চা চামচ। টালা জিরারগুঁড়ো হাফ চা চামচ। মরিচগুঁড়ো হাফ চা চামচ। ঘি ৩ টে চামচ। তেল পরিমাণমতো। দই হাফ কাপ (দই না থাকলে ঘন দুধ দেওয়া যায়)। লবণ স্বাদমতো। গোলমরিচগুঁড়ো সামান্য।

প্রস্তুত প্রণালি : প্রথমে পুরের জন্য পনির গ্রেট করে একটু কাঁচামরিচ কুচি, একটু পেঁয়াজ কুচি ও একটু গরম মসলাগুড়ো দিয়ে হালকা তেল দিয়ে ভেজে নিতে হবে। এরপর পটোলে পনিরের পুর ভরে তেলে হালকা নেড়ে চেড়ে ভেজে নিতে হবে। তারপর ঘি গরম করে পেঁয়াজ কুচি ব্রাউন করে ভেজে নিয়ে গরম মসলার গুঁড়ো বাদে বাকি সব মসলা দিয়ে কষিয়ে নিতে হবে। এবার সামান্য পানি দিয়ে মসলা কষানোর পর পটোল দিয়ে দই দিয়ে কষাতে হবে। তবে চুলার আঁচ মিডিয়ামে থাকবে। মসলা ভাজা ভাজা হয়ে ঘি ওপরে উঠে এলে গরম মসলার গুঁড়ো আর স্বাদমতো লবণ দিয়ে নেড় চেড়ে নামিয়ে ফেলতে হবে। তারপর পরিবেশন করুন।

 

 

"