নৌরুটের সিগন্যাল বাতি বিকল

দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে যাত্রী-চালকরা

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর বিভিন্ন নৌপথের গুরুত্বপূর্ণ বাঁকে কর্তৃপক্ষের স্থাপিত সোলার সিস্টেম সিগন্যালের অধিকাংশ বাতি, কালো ড্রাম ও মার্কাসহ অন্যান্য সিগন্যাল সিস্টেম রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে চুরি ও বিকল হয়ে গেছে। এগুলো পুনঃস্থাপন বা রক্ষণাবেক্ষণের কর্তৃপক্ষের কোনো তৎপরতা চোখে পড়ে না। ফলে নৌপথনির্ভর যোগাযোগ ব্যবস্থা বর্তমানে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে রাতে আকাশের তারা দেখে নৌযান চালাতে হচ্ছে চালকদের। দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন এ রুটের যাত্রী ও চালকরা।

দেখা যায়, পটুয়াখালীর চরঞ্চালনের আগুনমুখা, আন্ধারমানিক, চর কাজল, চর বিষ্টিন, চর মোন্তাজ, সোনার চর, তেঁতুলিয়া, রামনাবাদ, বুড়াগৌরাঙ্গসহ বেশ কয়েকটি নদ-নদী পাড়ি দিয়ে জেলায় লঞ্চ, কার্গো, ফিশিংবোর্ড ও ট্রলারগুলো চলাচল করে। এসব এলাকার নৌপথে রয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য ডুবো চর সিগন্যাল বাতির অভাবে অনুমাননির্ভর হয়ে নৌযান চালাতে গিয়ে প্রায়ই ঘণ্টার পর ঘণ্টা ডুবোচরে আটকে থাকে বিপাকে পরতে হচ্ছে চালকদের। এ ছাড়াও জেলার আমখোলা, গলাচিপা, পানপট্টি, চর কাজল, চরমোন্তাজ, চরশিবা, সোনারচর, মৌডুবিসহ দীর্ঘ উপকূলীয় এলাকাগুলোতে নামে মাত্র কয়েকটি সিগন্যাল বাতি দেখা গেছে। তবে যেগুলো দেখা গেছে, সেগুলোর দাঁড়িয়ে আছে শুধু খুঁটি।

নৌচালকরা জানানা, ল্যান্টার্ন (এলইডি) পদ্ধতির উন্নত মানের সিগন্যাল বাতি গুরুত্বপূর্ণ বাঁকে ও ডুবোচরগুলোতে স্থাপন করা হলে যেমন চুরি হওয়ার হাত থেকে রেহাই পাওয়া যাবে, তেমনি স্থায়িত্বও হবে দীর্ঘদিন।

"