সোনাইমুড়ীতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পৌঁছেনি কোনো ত্রাণ

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

সোনাইমুড়ী (নোয়াখালী) প্রতিনিধি

বর্ষার মধ্যে টানাবৃষ্টির ফলে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলা জুড়ে বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। জেলার বেগমগঞ্জ, সেনবাগসহ বিভিন্ন উপজেলাকে বণ্যা কবলিত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হলেও সোনাইমুড়ী উপজেলাকে এখনো বন্যা দূর্গত ঘোষণা করা হয়নি। ফলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে সরকারি-বেসরকারি কোন ধরনের ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছায়নি বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এমনকি এ নিয়ে প্রশাসনের মাঝেও নেই তেমন কোন উদ্যোগ।

সরজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার সোনাইমুড়ী পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড, উপজেলার নদনা, বারগাঁও, অম্বরনগর, নটেশ^র, চাষিরহাট, সোনাপুর ইউনিয়নসহ প্রায় দেখা দিয়েছে বন্যা। রাস্তা-ঘাট, বসতবাড়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ভেসে গেছে বন্যার পানিতে। বন্ধ হয়ে গেছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ভেসে গেছে উপজেলার অধিকাংশ মাছের খামার। পানি বন্দি হয়ে বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষ। কাজ করতে না পারলেও দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি সবখানে। ফলে নিম্ন আয়ের পরিবারগুলোতে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। এইদিকে ক্ষতিগ্রস্থরা কোন ত্রাণ না পাওয়ায় অসহায়ত্বের কথা বলেছে এ প্রতিবেদকের কাছে।

ত্রাণ নিয়ে সাধারণ মানুষকে কোন সদোত্তর দিতে পারেনি জনপ্রতিনিধিরা। নদনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ জানান, নদনা ইউনিয়নে দেখা দিয়েছে ব্যাপক বন্যা। বর্তমানে পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন ধরনের ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছায়নি। বজরা ইউপি চেয়ারম্যান মিরন অর রশিদ বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার তালিকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর প্রেরণ করেছি। এখনো কোন ত্রাণ সামগ্রী পাইনি।

ত্রাণ সামগ্রী বিষয়ে সোনাইমুড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল ফয়সাল জানান, উপজেলার বিভিন্নস্থান থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সরকারিভাবে ত্রাণ সামগ্রীর ব্যবস্থা করা হবে।

"