নদীভাঙনে ৩৫ বাড়িঘর বিলীন খোলা মাঠে ক্ষতিগ্রস্তরা

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

বশির আহম্মেদ মোল্লা, নরসিংদী

নরসিংদীর রায়পুরায় চাঁনপুর কালিকাপুর মেঘনা নদীর ভাঙনে গত রোববার রাত ১১টার দিকে ৩৫টি বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ফলে ওই পরিবারগুলো ফাঁকা মাঠে আশ্রয় নিয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

স্থানীয় ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ ক্ষতিগ্রস্ত নাছির মিয়া জানান, নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চাঁনপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামে মেঘনার ভাঙনে ২০১৫ সালে কোরবানি ঈদের দিনে একই এলাকায় ৬৪টি বাড়িঘর বিলীন হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এবারের ভাঙনে আরো ৩৫টি বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ফলে পরিবারগুলো আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছে।

চাঁনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. বাবুল মিয়া জানান, ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে তিনি সহযোগিতার উদ্যোগ নিয়েছেন। এ ছাড়া রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু এমপির মাধ্যমে সরকারি সাহায্য-সহযোগিতার দাবি জানান তিনি।

চাঁনপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোমেন সরকার বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির মিয়া আমাদের সীমানার প্রকৃত মেঘনা নদীর ওপর বাঁধ দিয়ে নদী ভরাট করার ফলে প্রতিদিন চাঁনপুরের কালিকাপুর, সদাগরকান্দি লঞ্চঘাট, মোহনীপুরসহ কয়েক কিলোমিটার এলাকার বাড়িঘর ও ফসলি জমি মেঘনা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

রায়পুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের তালিকা করে ডিসি অফিসে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরিদর্শনকালে তার সঙ্গে ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) হুমায়ন কবীর, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল গনী প্রমুখ।

"