রাজারহাটে নরসুন্দরদের মানবেতর জীবনযাপন

প্রকাশ : ১৪ জুলাই ২০২০, ০০:০০

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ভালো নেই নাপিতরা (নরসুন্দর)। করোনাকালিন সময়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

জানা গেছে, রাজারহাট উপজেলায় প্রায় শতাধিক নাপিত সম্প্রদায়ের লোক আছেন। যারা সরাসরি এই পেশায় জড়িত। কথা হয় রাজারহাট ইউনিয়নের নাটুয়ামহল গ্রামের নাপিত সম্প্রদায়ের প্রবীণ ব্যক্তি যতিন্দ্রনাথ শীলের (৮০) সঙ্গে। তিনি অতীত স্মৃতি রোমন্থন করে বলেন, এক সময় গ্রামে গ্রামে ঘুরে মানুষের মাথার চুল কেটে সংসার চালিয়েছি। তিন ছেলের সবাই এই পেশায় জড়িত। বর্তমানে বয়স হয়েছে, কাজ করতে পারিনা। অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটছে। ছেলেদের সহায়তায় বেঁচে আছি কোন রকম। উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের খুলিয়াটারী গ্রামের নরেশ চন্দ্র শীল (৬৫) বলেন, এই বয়সে কাজ না করলে পেটে ভাত যায়না। হাটতে পারিনা তাই বাজারে বসে থাকি কেউ আসলে কাজ হয়, না আসলে নাই। সংসারের ভার আর টানতে পারিনা। রাজারহাট বাজার নরসুন্দর সমিতির সভাপতি স্বপন কুমার শীল (৪৫) বলেন, করোনাকালীন সময়ে কাজ নাই বললেই চলে। তার উপর দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারনে সংসার চালাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।

রাজারহাট বনিক সমিতির সভাপতি আমজাদ হোসেন বলেন, যাদের সেলুন নাই, পিঁড়িতে বসে কাজ করেন তাদের ৮/১০ জনের জন্য বনিক সমিতির কার্যালয়ের সামনে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে তারা কোন বাধা বিপত্তি ছাড়াই কাজ করতে পারেন। নিয়মিত তাদের খোঁজ-খবরও রাখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

 

"