এক রাতেই ৬ কিমি সড়ক কার্পেটিং!

কালিয়াকৈর রাস্তা পুনরায় সংস্কারের নির্দেশ

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০২০, ০০:০০

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বরইবাড়ী-ভাওয়াল মির্জাপুর আঞ্চলিক সড়কে তড়িঘরি করে রাতের আঁধারে কার্পেটিং করা হচ্ছে। এতে অত্যন্ত নিম্নমানের কাজ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে সম্প্রতি সড়কটি পরিদর্শন করে ঠিকারদার ও এলজিইডি কর্মকর্তাকে পুনরায় কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন ইউএনও কাজী হাফিজুল আমিন।

উপজেলা এলজিইডি অফিস জানায়, প্রায় ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ বড়ইবাড়ী-ভাওয়াল মির্জাপুর আঞ্চলিক সড়কটি সংস্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা। উপজেলার প্রধান প্রকৌশলী সাজ্জাদ কবীর সরকারের অধীনে এ কাজ করে ধীমান কনস্ট্রাকশন লিমিটেড। এখন কাজের নিম্নমানের কারণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে শিডিউল অনুযায়ী কাজ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় তাদের প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শুক্রবার ওই সড়কে গিয়ে দেখা যায়, নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে কোনো রকম নামমাত্র কার্পেটিং করা হয়েছে। হাটুরিয়াচালা বাজার এলাকা, জামালপুর চৌরাস্তার আশপাশে, ভাওয়াল মির্জাপুর ব্রিজ সংলগ্ন এলাকা, শোলহাটিসহ কমপক্ষে ২০টি স্থানে কার্পেটিংয়ের ফাঁকে খোয়া বেরিয়ে আছে। এই বর্ষায়ই সড়কটি বেহাল হয়ে পড়বে বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

হাটুরিয়াচালা এলাকার ব্যবসায়ী মোজাম্মেল খন্দকার, মোয়াজ্জেম হোসেন, কাজী মুদ্দিন, আবুল হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলীদের যোগসাজশে রাত ১০টার পরে কার্পেটিং করে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান গা-ঢাকা দিয়েছে। নি¤œমানের মালামালে কাজ শেষ করা হয়েছে। হাটুরিয়াচালা থেকে জামালপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত রাস্তায় নতুন কার্পেটিং করা হয়েছে তা বুঝার উপায় নেই। ২-৩ মাসেই সড়কটি আগের মতো ভাংগাচোড়া রূপে ফিরে যাবে। ধীমান কনস্ট্রাকশনের মালিক আব্দুল ওয়াহাব জানান, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার ও সাব-কন্ট্রক্টর টিপু মোল্লাহ রাতের আঁধারে এ কাজ করেছে। কোথাও কোনো সমস্যা হলে ঠিক করে দেওয়া হবে। অভিযোগ প্রসঙ্গে উপজেলা প্রধান প্রকৌশলী সাজ্জাদ কবীর সরকার জানান, সড়কে কিছু অংশে নিম্নমানের কাজ হয়েছে।

 

 

"