বকশীগঞ্জে বন্যার আগাম প্রস্তুতি নিচ্ছেন নদী পাড়ের বাসিন্দারা

প্রকাশ : ০৭ জুন ২০২০, ০০:০০

বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি

জামালপুরের বকশীগঞ্জে গত বছরের মত এবারও ভয়াবহ বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে বিপাকে পড়েছেন কৃষক। বৃষ্টির কারণে এসব কৃষক গোখাদ্যের জন্য খড় শুকাতে না পারায় সংরক্ষণ করতে পারছেন না। ফলে আগামি দিনে গোখাদ্যের সঙ্কট নিয়েও দুশ্চিন্তা রয়েছে। এদিকে এতো কিছুর পরও বন্যার আগাম প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন দুর্যোগ প্রবন নি¤œাঞ্চল ও নদী পাড়ের মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি বছর মে থেকে আগষ্ট মাস এর মাঝামাঝি সময়ে উপজেলায় প্রবল বন্যা দেখা দেয়। বন্যার কারণে মানুষের জীবনযাত্রার মান নি¤œমুখী হয়ে পড়ে। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে এ এলাকার মানুষকে বরাবরই বন্যাসহ বিভিন্ন দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হয়। অনেক সময় অসময়েও বন্যার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় এ এলাকায়। এ কারণে কৃষকের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। তবে প্রকৃতির সঙ্গে চলতে চলতে তারা অনেকটাই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছেন জানান দুর্যোগ প্রবন এলাকার মানুষ। বকশীগঞ্জ উপজেলার পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ ও দশানী নদী বেষ্টিত বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে এবার উল্টো চিত্র। এবার এসব এলাকার মানুষ তাদের চিন্তা ধারা বদলে ফেলেছেন। বন্যা মোকাবেলায় ব্যক্তিগত ভাবেই তারা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। আবার বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতায় তারা বিভিন্ন দুর্যোগ মোকাবেলায় কাজ করছেন।

বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে পরিচিত মেরুরচর, সাধুরপাড়া, বগারচর ও নিলাখিয়া ইউনিয়নের কয়েকশ’ পরিবার গত ১০ মাসে তাদের বাড়ির ভিটা উঁচু করেছেন। নিজ উদ্যোগ এবং বেসরকারি সংস্থা ইএসডিও’র সৌহার্দ্য-৩ কর্মসূচির উদ্যোগে ২৫২ টি হতদরিদ্র পরিবারকে ভিটা উঁচু করে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে মানুষের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য এবং মানুষের অর্থনৈতিক ন্যায্যতা নিশ্চিত করার জন্য উন্নয়ন সংঘ রি-কল ২০২১ প্রকল্প নামে একটি প্রকল্প দুর্যোগ মোকাবেলায় সক্ষমতা বৃদ্ধি নিয়ে মেরুরচর, সাধুরপাড়া, বগারচর ও নিলাখিয়া ইউনিয়নে কাজ করে যাচ্ছেন।

অপরদিকে ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগেও বন্যার সময় পর্যবেক্ষণ, বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো ও ত্রাণ কার্য সম্পন্ন করার জন্য নৌকা তৈরি করছেন। বন্যার আগাম প্রস্তুতি হিসেবে সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদুল আল বাবু একটি বড় নৌকা তৈরি করছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

বন্যার আগাম প্রস্তুতি নিয়ে কথা হলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) হাসান মাহবুব খান জানান, গত বছরের বন্যার সময় একটি নৌকা প্রস্তত করা আছে। সেটি এবারও ব্যবহার করা হবে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় থেকে প্রত্যেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের বন্যা মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। নদী ভাঙন এলাকায় ক্ষতিগ্রস্তদের পূনর্বাসনের জন্য একটি তালিকা তৈরি জন্য চেয়ারম্যানদের শিগগিরই চিঠি দেওয়া হবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে নৌবাহিনীর সহযোগিতায় একটি প্রতিবন্ধী বান্ধব নৌকা প্রস্তুত করা হচ্ছে। বন্যার সময় যেন সহজেই প্রতিবন্ধীদের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা থেকে তাদের সড়ানো যায়। বন্যার প্রকোপ শুরু হলেই সেটি হস্তান্তর করবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ অধিদপ্তর।

 

"