উল্লাপাড়ায় গরু মোটাতাজাকরণে মনোযোগী খামারিরা

প্রকাশ : ০৬ জুন ২০২০, ০০:০০

সাহারুল হক সাচ্চু, উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ)

আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ষাড় গরু মোটাতাজা করণে মনোযোগ দিয়েছেন খামারী ও গৃহস্তরা। গরুগুলোকে দেওয়া হচ্ছে খাদ্যের জোরালো যোগান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত ক’বছর হলো উল্লাপাড়া উপজেলায় বহু সংখ্যক ব্যক্তিগত বড় ছোট গো-খামার গড়ে উঠেছে। এছাড়া প্রায় সব গ্রামেই গৃহস্থ পরিবারগুলো দু’চারটি করে গরু লালন পালন করে থাকে। বছরের অন্য সময়ের চেয়ে কোরবানীর ঈদ সামনে রেখে চার থেকে পাঁচ মাস আগে থেকেই গ্রাম পর্যায়ে ষাড় গরু লালন পালন কারীদের সংখ্যা অনেক বেশি হয়। এখন গোখামার ও গৃহস্থ পরিবারগুলো দেশীয় জাতের ষাড় গরু লালন পালন করে থাকে।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গোটা উপজেলায় মোট ১১ হাজার ৪৩৯ টি গোখামার রয়েছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ১৮১ টি খামারে ৩২ হাজার ৪৬৫টি ষাড় গরু ও ৩ হাজার ২৫৮টি খামারে ১২ হাজার ৩৩৮টি গাভী গরু লালন পালন করা হচ্ছে।

কোরবানীর ঈদের আর দু’মাসের কম সময় বাকি রয়েছে। এরই মধ্যে খামারীরা ষাড় গরুগুলো মোটাতাজাকরণে খাদ্যের যোগান বাড়িয়ে দিচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গৃহস্থদের পালিত ষাড়গুলোর প্রায় সবই দেশীয় ছোট ও মাঝারি জাতের। স্থানীয় হাট থেকে গরুগুলো কিনে লালন পালন করছেন তারা।

একাধিক গো-খামারী ও গৃহস্থরা জানায়, কোরবানী ঈদের সপ্তাহ তিনেক আগে থেকেই গরু কেনাবেচা শুরু হয়। এ হিসেবে মাঝে আর বেশি দিন সময় নেই। তারা জানান গোখাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় গরু লালন পালনে খরচ গতবারের তুলনায় বেশি হবে।

উল্লাপাড়া গ্যাস লাইন পশুর হাটে রিয়াদ সেতু এন্টারপ্রাইজ নামের খামারটি প্রায় দশ বছর হলো গড়ে উঠেছে। এবারে খামারটিতে বড় ছোট মিলে ২২টি ষাড় গরু লালন পালন করা হচ্ছে। খামারের মালিক রিমন হাসান মন্ডল জানান, গত মাস দেড়েক হলো খাদ্যের যোগান বাড়িয়ে দিয়েছেন। সেই সাথে চলছে সার্বিক পরিচর্যা। উল্লাপাড়ার পশু হাটগুলো করোনা পরিস্থিতিতে প্রায় দেড় মাস বন্ধ ছিল। এখন হাটগুলো নিয়মিত বসছে। পশু আমদানী ও কেনাবেচা বেশ ভালই হচ্ছে বলে জানা গেছে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. মোর্শেদ উদ্দীন আহম্মদ জানান, কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে খামারী ও গৃহস্থরা ষাড় গরু মোটাতাজাকরণে এরই মধ্যে পুরোদমে খাদ্যের যোগান দিচ্ছে। তার বিভাগ থেকে গরু লালন পালনে খামারীদের প্রশিক্ষণ ও সার্বিক পরামর্শ দেওয়াসহ নানা সহযোগিতা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

 

"