ইবির ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে অসংগতি, সংশোধন

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০

ইবি প্রতিনিধি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় ধর্মতত্ত্ব ও ইসলাম শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘এ’ ইউনিটের ফলাফলে সংশোধন আনা হয়েছে। গত ১২ নভেম্বর ‘এ’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পর ফলাফলে বেশকিছু অসঙ্গতি ধরা পড়ায় তা সংশোধন করে গত বুধবার (১৩ নভেম্বর) পূনরায় ফল প্রকাশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। জানা যায়, ১২ নভেম্বর, মঙ্গলবার ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ হওয়ার পর আবু সাইদ নামের এক শিক্ষার্থী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি পেজে তার ফলাফল শিটের স্ক্রিনশটসহ একটি পোস্ট দেন। যেখানে তিনি তার আইডি: এ-১৯১১৪১২, রোল: ২০৩১ উল্লেখ করেন।

পোস্টে প্রদানকৃত ওই শিক্ষার্থীর রেজাল্ট শিটের প্রাপ্ত নম্বর ছিল ৮৩ দশমিক ৫। যেখানে এমসিকিউ তে ৪৫.৫ এবং লিখিত ০ (শূন্য)। লিখিততে শূন্য পাওয়ায় ওই শিক্ষার্থীকে মেধাতালিকায় রাখা হয়নি।

এর ফলে ওই শিক্ষার্থীর থেকে কম নম্বর পেয়েও অনেক শিক্ষার্থী মেধাতালিকায় চলে আসে। ওই শিক্ষার্থীর দাবি, তার লিখিত পরীক্ষা ভালো হয়েছে। তিনি লিখিততে কমপক্ষে ১০ নম্বর পাবেন। পরে ওই শিক্ষার্থীর অভিযোগ আমলে নিয়ে পুনরায় উত্তরপত্র পূন:র্মুল্যায়ন করেন সংশ্লিষ্ট ইউনিট কর্তৃপক্ষ। পরে ওই শিক্ষার্থী লিখিত পরীক্ষায় ১০ পেয়ে মেধাতালিকায় ৮ম হন। পূনর্মুল্যায়ন পুর্নমূল্যায়নে অকৃতকার্য হওয়া এমন আরো দুই শির্ক্ষার্থী মেধাতালিকায় স্থান পান। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয় সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় তাদের বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। পরবর্তীতে ফলাফল পূনর্মুল্যায়ন করে তিন শিক্ষার্থীর প্রাপ্ত নম্বর অনুযায়ী তাদেরকে মেধা তালিকায় রাখা হয়। পাশাপাশি মেধাতালিকায় স্থানপ্রাপ্তদের নতুন করে তালিকা প্রস্তুত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

এদিকে পূনঃরায় ফল প্রকাশের পর ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে নতুনভাবে মেধাতালিকায় স্থান প্রাপ্তদের জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিট সমন্বয়কারী অধ্যাপক ড. লোকমান হোসেন বলেন, ‘টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে ফলাফলে কিছুটা ত্রুটি হয়েছিলো। বিষয়টি সংশোধন করা হয়েছে।’ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা টেকনিক্যাল উপকমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মন বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট ইউনিট কর্তৃক উত্তরপত্র নিরীক্ষণে কিছু ভুল থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। তবে উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়ন করে বিষয়টি সংশোধন করা হয়েছে।’

"