নির্মাণের দেড় যুগেও ইউপি ভবনের কার্যক্রম চালু হয়নি

কুলাউড়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান অফিস করেন পৌর শহরে

প্রকাশ : ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ভবন নির্মাণের দেড় যুগেও তা চালু হয়নি। এতে নষ্ট হয়ে গেছে ভবনের বেশির ভাগ জিনিসপত্র। এদিকে ভবনটির কার্যক্রম চালু না হওয়ায় অস্থায়ীভাবে ইউনিয়নের দাফতরিক কার্যক্রম চলছে কুলাউড়া পৌর শহরে অবস্থিত জেলা পরিষদের জায়গায় একটি পুরনো ভবনে।

জানা গেছে, ২০০০ সালের ১৫ জুন প্রায় ২৩ লাখ টাকা ব্যয়ে সদর ইউনিয়নের স্থানীয় জনতাবাজারে একটি দ্বিতল কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা হয়। তৎকালীন সময়ে এ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন বর্তমান সংসদ সদস্য সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ। এই ভবনে হলরুমসহ চেয়ারম্যানের কক্ষ, সচিবের কক্ষ, ইউপি সদস্যদের (মেম্বার) কক্ষ, আনসার-ভিডিপি, গ্রাম আদালত ও গ্রাম পুলিশদের আলাদা আলাদা কক্ষ রয়েছে। সবগুলোই এখন ব্যবহারের অনুপযোগি। ভবনে চেয়ারম্যান-মেম্বাররা আসেন না। ফলে ভবনে পরিষদের কোন কার্যক্রম চলে না। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়েছে স্থানীয়রা। এখানে একটি হিন্দু পরিবার কয়েক বছর থেকে বসবাস করছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায় যে, পরিত্যক্ত ভবনটির সম্মুখ অংশে পিলারের সাথে গরু, ছাগল বাধা। ভবনের নিচতলায় চলছে ফানিচার সামগ্রী তৈরির কাজ। বেশির ভাগ কক্ষের দরজা-জানালা নেই। যেগুলো আছে সেগুলোও নষ্টের পথে।

সরেজমিন কুলাউড়া ইউনিয়ন ভবন পরিদর্শনকালে ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সঙ্গে আলাপে জানা যায়, ১৯৯৬ সালে কুলাউড়া পৌরসভা গঠনের পর কুলাউড়া ইউনিয়ন আলাদা হয়ে যাওয়ায় সদর ইউনিয়নের বিটিআরআই ও জনতাবাজারে ইউনিয়ন ভবন নির্মাণ করার জন্য জায়গা দেখা হয়। পরে ইউনিয়নের মধ্যবর্তী স্থান জনতাবাজারে ইউপি ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়। কিন্তুু এখানে ভবন নির্মাণে দেখা দেয় এক জটিলতা। ভবনের নির্মাণ স্থগিত করে বিটিআরআই’এ প্রস্তাবিত স্থানে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণের জন্য ২৪ জন বাদি হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের বিরুদ্ধে মৌলভীবাজার জজ আদালতে মামলা করেন।

উপজেলা প্রকৌশলী মুহাম্মদ ইসতিয়াক হাসান জানান, মামলার রায়ের কপি হাতে পেলে নতুন করে টেন্ডার আহ্বান করে কাজ শুরু হবে।

বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান নার্গিস আক্তার বুবলী জানান, আইনী সমস্যার নিরসন হলে আশা করছি ইউপি ভবনের কাজ শুরু হবে।

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান জানান, জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ইউপি কার্যারয় স্থানান্তরের জন্য সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানের কাছে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। কারণ এই জায়গায় জেলা পরিষদের একটি আধুনিক মার্কেট নির্মাণ করা হবে।

"