সেতু আছে, তবু নৌকায় পারাপার

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

সিরাজগঞ্জ ও কামারখন্দ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার গাড়াবাড়ি নদীর উপর নির্মিত সেতুর দুইপাশে সংযোগ সড়ক না থাকায় নৌকা দিয়ে পাড় হন ১৫ গ্রামবাসী। উপজেলার ভদ্রঘাট ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের গাড়াবাড়ি-বড়হর সড়কের মাথায় ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করে কামারখন্দ উপজেলার দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ। তবে এর দায় স্বীকার করছেন না স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা।

স্থানীদের অভিযোগ, সেতুটি নির্মাণের অর্ধবছর পেরিয়ে গেলেও নানা অজুহাতে সংযোগ সড়ক তৈরি করেনি সংশ্লিষ্ট বিভাগ। ফলে সেতুটি এলাকাবাসির কোন কাজেই আসছে না। এর ভূক্তভোগী হচ্ছেন প্রায় ২৫ হাজার মানুষ।

এলাকাবাসি জানায়, গাড়াবাড়ি-বড়হর সড়ক দিয়ে ৪টি প্রাইমারি স্কুল, ১টি কলেজ, ১টি মাদরাসা, ২টি হাইস্কুলের প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থী যাতায়াত করে। এছাড়া সড়কের বড়হর, ধুঞ্চি, চরধুঞ্চি, দূর্গাপুর, পার্শ্ববর্তী উপজেলারও একাধিক গ্রামসহ ১৫ গ্রামের প্রায় ২৫ হাজার মানুষকে জেলা-উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ অফিস-আদালাতে যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় নদী পাড় হন। এদিকে স্থানীয়রা তাদের ফসল গঞ্জে বিক্রি পরিবহণেও চরম কষ্ট পোহাতে হয়।

জানতে চাইলে ভদ্রঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক জানান, এ সেতু ও সংযোগ সড়ক নির্মাণ ইউনিয়ন পরিষদের কাজ নয়।

জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আয়শা সিদ্দিকা প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, এ সেতু নির্মাণ কাজ আমি এখানে যোগদানের আগে হয়েছে। আমার সময়ে হয়নি। তাই এ বিষয়ে আমি বেশি কিছু বলতে পারব না।

তবে কামারখন্দ ইউএনও জাহাঙ্গীর আলম ও উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ সবুজ জানান, বর্ষার কারণে মাটি না পাওয়ায় সময় মত কাজটি করা সম্ভব হয়নি। তবে বর্ষার পানি সরে গেলেই সংযোগ সড়কটি নির্মাণ করা হবে।

 

"