তানোরে ভুয়া সনদে আনসার বাহিনীতে চাকরি

প্রকাশ : ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি

রাজশাহীর তানোরে আনসার বাহিনীর উপজেলা কোম্পানি কমান্ডার পদে সেকেন্দার আলী এসএসসি পাশের ভুয়া সনদ দিয়ে চাকরি নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, সেকেন্দার আলী রাজশাহী জেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয় থেকে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি কোম্পানি কমান্ডার পদে চাকরিতে নিয়োগ পান। এরআগে প্রায় দশ বছর ধরে আনসার কোম্পানী কমান্ডার হিসেবে তানোরে বিনা ভাতায় কর্মরত ছিলেন। তবে তার বিরুদ্ধে পুরো সময়জুড়েই বিভিন্ন সময়ে আনসার অফিসে দালালির অভিযোগও আছে। অফিসারদের সঙ্গে সখ্যতা থাকায় আসল ঠিকানা পরিবর্তন করে তানোর ও মুন্ডুমালা দুই পৌরসভার বিভিন্ন স্থানে কয়েকজনকে টাকার বিনিময়ে ওয়ার্ড দলনেতা-নেত্রী হিসেবে চাকরি দিয়েছেন বলেও জানা যায়। তবে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা কোম্পানি কমান্ডার সেকেন্দার আলী বলেন, আমি ১৯৮৬ সালে মোহাম্মদপুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেছি। নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করছি। কখনও কোন ধরনের অনিয়ম-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম না। উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সেলিনা খাতুন জানান, জেলা অফিস তৎকালীন সময়ে তাকে নিয়োগ দিয়েছে। কিভাবে দিয়েছে সে বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। তবে গত ৩০ সেপ্টেম্বর আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর রাজশাহী জেলা কমান্ড্যান্ট (অতিরিক্ত দায়িত্ব) শাহ্ আহমদ ফজলে রাব্বী স্বাক্ষরিত এক পত্রে উপজেলা কোম্পানি কমান্ডার সেকেন্দার আলীকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদানের নির্দেশ দেন। আর সেই নির্দেশ পাওয়া মাত্রই অভিযুক্ত সেকেন্দার আলীকে সকল দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় বলে জানান আনসার ভিডিপি’র এই কর্মকর্তা।

বিষয়টি নিয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী জেলা কমান্ড্যান্ট শাহ্ আহমদ ফজলে রাব্বী’র সঙ্গে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তবে তার মুঠোফোন বন্ধ থাকায় কোন মন্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ নিয়ে রাজশাহী জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মনিটরিং সদস্য হুমায়ন কবির বলেন, তানোর উপজেলা কোম্পানি কমান্ডার সেকেন্দার আলীর বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কয়েকটি অভিযোগ রয়েছে। তার কাগজপত্র যাচাই বাছাই করে এর সত্যতাও মিলেছে। তাই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্টদের ইতিমধ্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

 

"