নৌকা বানানোর কথা বলে সড়কের গাছ সাবাড়

শাজাহানপুরে ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় আ.লীগ নেতার যোগসাজোশ

প্রকাশ : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি

বগুড়ার শাজাহানপুরে অনুমোদন ছাড়া রাস্তার পাশের ১২টি সরকারি গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার খোট্টাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল ফারুক ও ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি গাজীউল হক গাজীর এসব কাছে কেটে নেয় বলে জানান স্থানীয়রা। তবে দুটি গাছ কাটার কথা স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান। অপরদিকে খোট্টাপাড়া ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি গাজীউল হক গাজী বলেছেন, ‘গাছ কাটলে সরকারি গাছই কাটতে হবে।,

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গত শুক্রবার উপজেলার খোট্টাপাড়া ইউনিয়নের ডোগলাপাড়া গ্রামে রাস্তার পাশ থেকে ৩টি ইউক্যালিপটাস গাছ কেটে নেন অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল ফারুক। এছাড়াও এক মাসের ব্যবধানে ওই ইউনিয়নের বোহাইল এলাকা থেকে ১টি মেহগনি, ২টি ইউক্যালিপট্যাস, জালসুকা এলাকা থেকে ৩টি ইউক্যালিপট্যাস ও খোট্টাপাড়া, ভ্রমরকুটি এবং খলিসাকান্দি গ্রাম থেকে ১টি করে রাস্তার পাশের শিশু গাছ কাটা হয়েছে। গাছগুলো খোট্টাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল ফারুক এবং ওই ইউনিয়নের আ.লীগ সভাপতি গাজীউল হক গাজী কেটে নিয়েছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবলীগ নেতা জানান, ‘নৌকা বানানোর কথা বলে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবদুল্লাহ আল ফারুক এবং খোট্টাপাড়া ইউনিয়নের আ.লীগ সভাপতি গাজী এই গাছগুলো কেটে নিয়েছেন।

গতকাল শনিবার উপজেলার নারিল্যা এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে একটি নৌকা তৈরী করা হয়েছে। নৌকাটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৭২ ফিট। গ্রামবাসিরা বলছেন এই নৌকা আ.লীগ নেতারা বানিয়েছেন। এটা এখানে প্রদর্শনীর জন্য রাখা হবে। শুক্রবার রাতে জালসুকা গ্রামের হরিতলা বাজারে একটি মিটিং ডেকে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক।

আ.লীগ নেতা গাজীইল হক গাজী জানান, ‘গাছগুলো থাকলে ফসলের ক্ষতি হবে, তাই কাটা হয়েছে। আর গাছ কাটলে সরকারি গাছই তো কাটা লাগবি।’

ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল ফারুক জানান, ডোগলাপাড়া গ্রাম থেকে মরা দুটি গাছ কাটা হয়েছে। নৌকা বাইস খেলার জন্যে একটি নৌকা তৈরী করছিলেন গ্রামবাসি। তাদের সহায়তা করার জন্যে তিনি গাছ দুটি দিয়েছেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. ফুয়ারা খাতুন জানান, তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

"