পথে পথে বাধা

১০ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারহীন ১২ বছর

প্রকাশ : ২১ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ সান্তাহার পৌর এলাকার সাইলো সড়ক থেকে আদমদীঘি রেলস্টেশন পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার পাকা সড়কের অধিকাংশই চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। খানাখন্দক ও জলাবদ্ধতার কারণে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগে পড়ছেন সাধারণ মানুষ। বর্ষায় সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে যায়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ১২ বছরেও সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় শহরের সঙ্গে গ্রামীন যোগাযোগ চরমভাবে বিঘিœত হচ্ছে।

বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহার সাইলো সড়ক থেকে দমদমা, কদমা ও মন্ডবপুর হয়ে আদমদীঘি রেলগেট পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়ক। প্রায় এক যুগ আগে পাকা করা হয়। স্থানীয়রা জানান, গুরুত্বপূর্ণ এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২০-২৫ গ্রামের হাজার হাজার মানুষ উপজেলা সদর ও সান্তাহার পৌর শহর দিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন। সড়কটি পাকাকরণের পর কিছু অংশে সংস্কার কাজ করা হলেও কিছুদিন যেতেই আবারো খানাখন্দকে পরিণত হয়। গত কয়েক বছরে কোনো সংস্কার না হওয়ায় বর্তমানে বিভিন্ন স্থানে কার্পেটিং উঠে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। এতে সড়কটি দিয়ে চলাচলে প্রাণহানির মতো ঘটনাও ঘটছে। এদিকে বর্ষাকালে সড়কে ছোটবড় গর্তগুলো সামান্য বৃষ্টির পানিতে পরিপূর্ণ হয়ে থাকায় দূর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা যায়।

আদমদীঘির করজবাড়ী গ্রামের চার্জার চালিত অটোরিকশা চালক জাহিদুল ইসলাম জানান, সড়কজুড়ে গর্ত থাকায় সিএনজি অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহন দুর্ঘটনায় ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছে। এমন অবস্থায় প্রায় গাড়ির যন্ত্রপাতি নষ্ট হচ্ছে। তাছাড়া কদমা-টু-সান্তাহার যেতে আগের থেকে এখন দ্বিগুণ সময় লাগে।

দমদমা গ্রামের জামিল হোসেন জানান, বর্তমানে সড়কের বিটুমিন, কার্পেটিং উঠে বেহাল হয়ে পড়ায় রোগী বহন কঠিন হয়ে পড়েছে। সড়কটি সংস্কার করা হলে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের কষ্ট লাঘব হবে।

সান্তাহার ইউপি চেয়ারম্যান এরশাদুল হক টুলু প্রতদিনের সংবাদকে বলেন, এ সড়কটি দিয়ে সান্তাহার ইউনিয়নের দমদমা, প্রসাদখালী, কাশমিল্লা ও আদমদীঘি ইউপির করজবাড়ী, কদমা, রামপুরা, মন্ডপুরাসহ ১০-১৫ গ্রামের মানুষ চলাচল করে। এখান দিয়েই তাদের উৎপাদিত ধানসহ কৃষিপণ্য আনানেওয়া করেন। সড়কটি বর্তমানে বেহাল হওয়ায় অনেক ঝুঁকিতে চলাচল করতে হচ্ছে। তাই সড়কটি অতিশিঘ্রয় সংস্কার করা প্রয়োজন বলে মনে করছি।

জানতে চাইলে সদ্য বিদায়ি উপজেলা প্রকৌশল আব্দুল মতিন প্রতিদিনের সংবাদকে জানায়, সান্তাহার সাইলো সড়ক থেকে দমদমা হয়ে আদমদীঘি রেলস্টেশন পর্যন্ত ওই সড়কটি ‘সড়ক ও জনপথ’ বিভাগের আওতায়। তাই এর সংস্কার করা আমাদের সম্ভব নয়।

বগুড়া সওজ প্রকৌশলী আশরাফ উজ্জামানের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে বলেন, আদমদীঘির সাইলো থেকে আদমদীঘি রেলস্টেশন পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ১ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের বরাদ্দ পেয়েছি। বর্ষার কারণে এখন কাজ শুরা করা যাচ্ছে না। আগামী সেপ্টেম্বর থেকে কাজ শুরু হবে। বাকী কাজের বরাদ্দের জন্য চেষ্টা চলছে।

 

"