বেড়ায় ব্যাটারি ভাঙার কাজে শিশু-কিশোর

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

আরিফ খান, বেড়া (পাবনা)

পাবনার বেড়া উপজেলার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে গড়ে উঠেছে রিকশা ভ্যানে ব্যবহৃত পুরাতন ব্যাটারী ভাঙার কারখানা। সেখানে কাজে নিয়োজিত শিশু কিশোররা। এতে ক্ষতিকর সীসার প্রভাবে মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে তারা।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নে রাস্তার পাশে প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যাটারি ভাঙার কারখানা অবস্থিত। সেসব কারখানায় বড়দের সাথে সাথে কাজ করছে শিশু-কিশোর। হাতে গ্লাভস ব্যবহার করলেও নাকে-মুখে তারা কিছুই ব্যবহার করছে না। লাভজনক হওয়ায় ব্যাটারি ভাঙার কারখানার সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। সারাদিনে ব্যাটারী ভাঙার ওপর নির্ভর করে এসব শিশু-কিশোরদের মজুরি দেওয়া হয়।

জানা গেছে, ব্যাটারীর কার্যক্ষমতা শেষ হলে কেজি দরে সেসব ব্যাটারী হাত ঘুরে চলে আসে এসব কারখানায়। তারপর সীসা তৈরির জন্য সেসব ব্যাটারি ভেঙে এসিড মিশ্রিত ছাই ও গাদ আলাদা করা হয়। সেসব ছাই ও গাদ তীব্র তাপ সৃষ্টিকারী চুল্লিতে পোড়ানো হয়। আর এই পোড়ানোর কাজটি সন্ধার পর শুরু হয়ে সারারাত ধরে চলে। পোড়ানোর সময় চারদিকে ছড়িয়ে পরে তীব্র ঝাঁঝালো ধোঁয়া। এতে চরম দুর্বিসহ অবস্থায় রাত পার করতে হয় মরিচ পাড়া, চরবক্তারপুর ও আগবাগশোয়াসহ এর পার্শ¦বর্তী রাকশা, নেওলাইপাড়া, নতুনভরেঙ্গা, সোনাপদ্মা গ্রামের মানুষদের।

বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মিলন মাহমুদ জানান, ব্যাটারী ভাঙার ফলে শ^াস-প্রশ^াসের সাথে ফুসফুসে সীসার ক্ষতিকর প্রভাব পরে। ফলে তাদের ফুসফুসের সংক্রমণসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

 

"