ব্রাহ্মণবাড়িয়া-চৌহালী

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কলেজছাত্রসহ তিনজনের মৃত্যু

প্রকাশ : ১০ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের মোস্তফা মিয়া (৪০) এবং বুধল ইউনিয়নের সুতিয়ারা গ্রামের মো. ইয়াছিন মিয়া (৪৫)। গত সোমবার রাতে ঘটনাটি ঘটে।

নিহত মোস্তফা মিয়ার বড় ভাই আব্দুল জব্বার জানান, সোমবার রাত ৮টার দিকে বাড়িতে বিদ্যুতের লাইনের কাজ করতে গিয়ে মোস্তফা তারে জড়িয়ে পড়ে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সদর হাসপাতালের চিকিৎসক সৈয়দ আরিফুল ইসলাম বলেন, রোগীকে হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়। এদিকে নিহত ইয়াছিনের ছোটভাই আক্কাস মিয়া জানান, সোমবার সন্ধ্যার পর সুতিয়ারা গ্রামে অটোরিকশা গ্যারেজে ব্যাটারিচালিত রিকশায় চার্জ দিতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে ইয়াছিন গুরুতর আহত হন। পরে তাকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর থানার ওসি সেলিম উদ্দিন বলেন, মৃত্যুর ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে সিরাজগঞ্জের চৌহালী প্রতিনিধি জানান, চৌহালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মো. শামিম রেজা (২৪) নামে এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। সে চৌহালী সরকারী কলেজের বি এ ২য় বর্ষের ছাত্র। গতা সোমবার নাগরপুরের মিরকুটিয়া গ্রামে পুকুরে বিদ্যুতের লাইন দিতে গিয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শামিম উত্তর খাষকাউলিয়া গ্রামের মো. সোহরাব আলীর ছেলে।

নিহতের বোন সুবিতা জানায়, পুকুরে মাছ চুরি ঠেকাতে সোমবার রাতে ওই স্থানে একটি লাইট দিতে যায় শামিম রেজা। এসময় বিদ্যুতের তারের সঙ্গে সে আটকে গেলে আমার মা ওকে বাঁচানোর জন্য পানিতে লাফ দেয়। কিন্তু এর আগেই সে তারের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। আমি দৌড়ে গিয়ে মেইন সুইচ অফ করে দিলে মা বাঁচলেও ভাইকে আরে বাঁচান গেলো না।

 

"