গৌরিপুরে বেতন পাননি ১৭৭টি স্কুলের শিক্ষক

প্রকাশ : ১০ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ১৭৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষকরা গত জুন মাসের বেতন পাননি। বেতন না পাওয়ায় শিক্ষকরা অর্থ সঙ্কটে পড়েছেন। তাদের মাঝে বিরাজ করছে চাপা ক্ষোভ।

শিক্ষকদের অভিযোগ, আশপাশের উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জুলাই মাসের শুরুতেই তাদের বেতন পেয়েছেন। কিন্তু শিক্ষা অফিসের গাফিলতির কারণে আমার বেতন বঞ্চিত হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি।

গত সোমবার বিকালে শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারি বাছির উদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, আমাদের কোনো গাফিলতি নেই। আধাঘন্টার মধ্যে বেতন শিক্ষকদের অ্যাকাউন্টে যোগ হবে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ১৭৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এসব বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষক পদে প্রায় ৯ শতাধিক শিক্ষক কর্মরত আছেন। বছরের প্রতি মাসের ২/৩ তারিখের মধ্যে শিক্ষকদের বেতন তাদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে যোগ হয়। কিন্তু জুলাই মাসের ৮ তারিখ হয়ে গেলেও শিক্ষকদের জুন মাসের বেতন তাদের অ্যাকাউন্টে যোগ হয়নি।

চান্দের সাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসরিন বিনতে সুলতানা বলেন, শিক্ষা অফিস এখন আর শিক্ষকদের ভালো-মন্দ নিয়ে ভাবেনা। শিক্ষা অফিসে কর্মরত আমাদের স্যাররা ঠিকই জুন মাসের বেতন পেয়েছেন। কিন্ত আমরা বেতন পাইনি। এখন আমাদের মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে।

শালিহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ফজলে এলাহী বিপুল বলেন, শিক্ষা অফিস থেকে সঠিক সময়ে শিক্ষকদের বেতনের চাহিদাপত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে না পাঠানোয় আমরা বেতন বঞ্চিত হয়েছি।

বেতনের টাকা দিয়েই আমাদের সংসার চলে। কিন্ত এখন টানাটানি করে চলতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম জুয়েল বলেন, আমাদের কোনো গাফিলতি নেই। আমরা শিক্ষকদের বেতনের চাহিদা পাঠিয়েছি। কিন্তু সংশ্লিষ্ট দফতরে বাজেট ঘাটতি থাকায় বেতন হয়নি।

 

"