চার নদীর ৬০ কিমি জুড়ে কচুরিপানা

প্রকাশ : ২৬ জুন ২০১৯, ০০:০০

লুৎফুল আলম সজল, নড়াইল

নড়াইলের নবগঙ্গা, চিত্রা, কাজলা ও হরি নদীর প্রায় ৬০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কচুরিপানায় ভরে গেছে। এসব কচুরিপানা বিভিন্ন খালেও প্রবেশ করছে। গত ৬ মাস ধরে একটানা কচুরিপানা আটকে থাকায় ২৫টি খেয়া ঘাটের দু’পারের হাজার হাজার মানুষ নদী পারাপারে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। পারাপরে খরচও বেড়ে গেছে। এ কচুরিপানার কারণে নড়াইলে পণ্যবাহী কোনো ট্রলার, কার্গো সময়মতো যাতায়াত করতে পারছে না। মাছ ধরতে না পারায় জেলেরাও হয়ে পড়েছেন বেকার। কচুরিপানা অপসারণে জেলা প্রশাসন, নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন এবং পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সম্প্রতি উদ্যোগ নিলেও তা কাজে আসেনি।

জানা যায়, এ কচুরিপানার উৎপত্তি মাগুরা-নড়াইলের নবগঙ্গা নদী থেকে। ষাটের দশকের মাঝামাঝি মাগুরা শহরের ওপর নবগঙ্গা নদীতে বাঁধ দিয়ে স্লুইসগেট করা হলে নদীর ¯্রােতধারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বর্তমানে মাগুরার সাতদোয়া, বিনোদপুর, রাজাপুর, নহাটা, গঙ্গারামপুর, নড়াইলের মিঠাপুর ও নলদী এলাকায় জোয়ার-ভাটা না থাকায় এ অঞ্চলে জন্ম নেওয়া কচুরিপানা ঠিকমতো সরতে পারে না। আবার বর্ষকালে মাগুরার নাড়িখালী, নাদপুর খাল এবং এর পার্শ্ববর্তী নড়াইলের ছাতরা, ধোপাদা ও বাড়িভাঙ্গা খালের কচুরিপানা আশ্বিন-কার্তিক মাসে খাল থেকে এ অঞ্চলের নবগঙ্গা নদীতে নেমে আসে। কিন্তু ভাটায় এসব কচুরিপানা লোনা পানিতে নামতে না পেরে নবগঙ্গা ও চিত্রার বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে বংশ বৃদ্ধি করছে। মানুষের জীবনযাত্রায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। এর ফলে চিত্রা নদীর পেড়লি, জামরিলডাঙ্গা, খড়রিয়া, রঘুনাথপুর, সুমেরুখোলা, বাগডাঙ্গা, গোবরা, মিরাপাড়া, ভদ্রবিলা, পংকবিলা, শিখেলি, রতডাঙ্গা, ধোন্দা, পাঝারখালি, নবগঙ্গা নদীর নলদী, ভুমুরদিয়া, কলাগাছি, চালিতাতলা, চন্ডিবরপুর, সিঙ্গে, মনোখালী, গংগারামপুর, দরি-মিঠাপুর, হরি নদীর নিরালি ও কাজলা নদীর মুলিয়া খেয়া ঘাটে জরুরী প্রয়োজনে পারাপার ও শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে তাদের গন্তব্যে পৌঁছাতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

গত ২৪ এপ্রিল জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা শহরের বাঁধাঘাট এলাকায় মাশরাফি বিন মর্তুজা এমপির নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন, জেলা প্রশাসন এবং পাউবো’র উদ্যোগে এসব নদীর প্রায় ৬০ কি.মি এলাকার কচুরিপানা অপসারণ কাজের উদ্বোধন করেন। কিন্তু কয়েকদিন পর ঘূর্ণিঝড় ফনির প্রভাবে তা ভেস্তে যায়।

নড়াইল শহরের ব্যবসায়ী পংকবিলা গ্রামের রানা দাস ও পার্শ্ববর্তী লস্করপুর গ্রামের গৃহকর্মী আসমিনা বেগম জানান, বাড়ি থেকে শহরে আসতে পংকবিলা ঘাটে কচুরিপানার কারনে নৌকা পারাপারে ১০ মিনিটের জায়গায় প্রায় ৫০ মিনিট লেগে যায়। আবার পারাপারে চার টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

পংকবিলা ঘাটের ডিঙ্গি নৌকার মাঝি বিনয় বিশ্বাস জানান, কচুরিপানার কারনে কষ্ট অনেক বেশী হয়। পারাপারে আধাঘন্টা সময় নেয়। ফলে অধিকাংশ যাত্রীরা এ পথে না এসে সুলতান এবং রাসেল সেতু দিয়ে যাতায়াত করছে। বর্তমানে এ ঘাটে ৬টি নৌকার বদলে একটি নৌকা চলছে।

রতডাঙ্গা খেয়া ঘাটের মাঝি সেলিম বিশ্বাস বলেন, কচুরিপানার কারনে কমপক্ষে ১০ জন যাত্রী না হলে নৌকা ছাড়া সম্ভব হয়না। ফলে কমপক্ষে আধাঘন্টা দেরি করতে হয়। পূর্বে পারাপারে চার টাকা নিলেও এখন বাধ্য হয়ে ১০ টাকা নিচ্ছি।

জেলা সদরের আউড়িয়া ইউনিয়নের কামরুজ্জামান তুহিন বলেন, কচুরিপানার কারণে পংকবিলাসহ চারটি গ্রামের স্কুল-কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থী, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী সময়মতো নড়াইল শহরে প্রবেশ করতে পারে না। এ কচুরিপানা অপসারণে নিজে প্রায় ২৫ হাজার টাকা ব্যায় এবং বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েও ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানান।

সদরের ঘোলাখালী গ্রামের অনিল বিশ্বাস বলেন, দীর্ঘ প্রায় ৬ মাস মাছ ধরতে না পারার কারনে মাছ ধরতে সাহায্যকারী তিনটি ভোদরকে (স্থানীয় নাম ধাইড়ে) বসিয়ে বসিয়ে ছোট মাছ ও ব্যাঙ খাওয়াতে হচ্ছে। প্রতিদিন প্রায় দেড় কেজি মাছ বা সমপরিমান ব্যাঙ খাওয়ানো তাদের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর বিষয় বলে জানান।

সদরের রতডাঙ্গা গ্রামের জেলে উজ্জ্বল সরকার ও উত্তম সরকার জানান, গত এপ্রিল মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে ৭টি নৌকায় ১২ জনের একটি দল নিয়ে মিঠাপুর থেকে পেড়লি পর্যন্ত প্রায় ৬০ কি.মি এলাকার কচুরিপানা খুলনার রূপসা নদীর লোনা পানিতে পাঠানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ২ মে ঘূর্ণিঝড় ফনির প্রভাবে এসব কচুরিপানা জোয়ারে আবার চিত্রা-নবগঙ্গায় ফিরে আসে। জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা এ প্রতিনিধিকে বলেন, নড়াইল ও মাগুরা অঞ্চলের বিশাল এলাকার কচুরিপানা ভাটির টানে খুলনার লোনা পানিতে পাঠানোর জন্য অনেক চেষ্টা করেও কাজ হচ্ছে না। এর সাথে কয়েকটি জেলা জড়িত। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে কথা বলেছি। এ কাজ শুধু জেলা প্রশাসনের একার নয়। এখানে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

 

 

"