কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

৪২ কোটি ১৭ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা

প্রকাশ : ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০

কুবি প্রতিনিধি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৪২ কোটি ১৭ লাখ টাকার বাজেট পাশ হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক ভবনে উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ বাজেট উপস্থাপন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বহি. সিন্ডিকেট সদস্য চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান ও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড কুমিল্লার চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবদুস ছালামসহ আভ্যন্তরীন সিন্ডিকেট সদস্যরা।

এতে বাজেট উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক কামাল উদ্দিন ভূইয়া। গত ১৯ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ কমিটির (এফসি) সভায় প্রস্তাবিত বাজেটের অনুমোদন দেয়া হয়।

২০১৯-২০ অর্থবছরে বাজেটে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৪২ কোটি ১৭ লাখ টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ৩৮ কোটি ১৭ লাখ টাকা। পরে সংশোধিত আকারে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বাজেটের পরিমাণ ছিল প্রায় ৩৩ কোটি ৪৩ লাখ ৫৩ হাজার টাকা।

এবারের বাজেটে আয়ের উৎস হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) অনুদান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব আয়। এর মধ্যে প্রারম্ভিক স্থিতি ১০ লাখ টাকা, ইউজিসি দিবে ৩৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব তহবিল থেকে যোগান দেয়া হবে ৭ কোটি টাকা। ঘাটতি বাজেট ৫৩ লাখ টাকা যা পরবর্তীতে সংশোধিত বাজেটে ইউজিসির নিকট চাওয়া হবে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে ২৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতার জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এর মধ্যে শিক্ষকদের মূল বেতনের জন্য ৯ কোটি ৬৬ লাখ টাকা, কর্মকর্তাদের জন্য ২ কোটি ৯৫ লাখ ৮২ টাকা এবং কর্মচারীদের জন্য ২ কোটি ৬৫ লাখ ৩৭ টাকা। অর্থাৎ মূল বেতনের জন্য মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৫ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

অন্যদিকে পণ্য ও সেবা বাবদ সহায়তা খাতের (গাড়ীর জ্বালানী খরচ, শিক্ষার্থীদের গাড়ী ভাড়া, গ্যাস বিল, বিদ্যুৎ বিল, টেলিফোন বিল, কর্মচারীদের ওভরটাইম, দিবস উদযাপন, স্টেশনারী ব্যয়, মুদ্রণ ব্যয়, প্রচার ও বিজ্ঞাপন ব্যয়, টিএডিএ, আপ্যায়ন, আনসারদের বেতন, সংবাদপত্র ও সাময়িকি, গবেষণা ব্যয়, প্রকাশনা ব্যয়, রাসায়নিক দ্রব্যাদি, বই ও সাময়িকি, খেলাধুলা ব্যয়, বিএনসিসি, আসবাবপত্র মেরামত, কম্পিউটার ও অফিস সরঞ্জাম মেরামত, আবাসিক ভবন ও হল মেরামত, বৈদ্যুতিক মেরাতম ও সংরক্ষণ, মোটর যানবাহন মেরামত ইত্যাদি বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১১ কোটি ২৮ লাখ টাকা। এছাড়াও শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য আইকিউএসি খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৬ লাখ এবং গবেষণা খাতে ১ কোটি টাকা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন কার্যক্রম সম্প্রসারনের জন্য ৬৮ কোটি ৫৬ লাখ টাকার একটি উন্নয়ন প্রকল্প ২০১৪-১৫ অর্থবছরে শুরু হয়ে বর্তমান চলমান আছে। প্রকল্পটি শুরু হতে ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত ৫৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা ব্যয় হয় অবশিষ্ট ১১ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকার উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

 

"