কেন্দুয়ায় গার্মেন্ট কর্মী ধর্ষণ কথিত স্বামী পলাতক

প্রকাশ : ০৮ জুন ২০১৯, ০০:০০

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি

নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় এক গার্মেন্ট কর্মী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার উপজেলা মদন সড়কের শাপলা ইটভাটায় এ ঘটনা ঘটে। রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশ।

মদন উপজেলার ঝাওলা গ্রামের সুমন মিয়ার নেতৃত্বে এই ধর্ষণ ঘটেছে বলে তথ্য সূত্রে জানা যায়। সুমনের সঙ্গে কেন্দুয়া উপজেলা মাস্কা গ্রামের ভিকটিম গাজীপুর একটি সোয়েটার ফ্যাক্টরিতে কাজ করতেন। দুজনে বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও গোপনে বিয়ে করেন। ভিকটিমকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে মেডিকেলের জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে ওই নারী বাদী হয়ে কেন্দুয়া থানায় মামলা করেছেন।

ভিকটিমের বরাত দিয়ে কেন্দুয়া সার্কেলের এএসপি মাহমুদুল হাসান জানান, সুমন মিয়া ও ভিকটিম একই কারখানায় কাজ করার পরিচয় সূত্রে নিজেদের বৈবাহিক পরিচয় গোপন করে বিয়ে করেন। ঈদের ছুটিতে বাড়ি আসায় কথিত স্বামী সুমন মিয়া বৃহস্পতিবার ভিকটিমকে নিজে গ্রাম থেকে তুলে নিয়ে ভাড়ার মোটরসাইকেল নিয়ে ঘুরতে বের হয়। সন্ধ্যার পর কেন্দুয়া-মদন সড়কের শাপলা ইটভাটার কাছে এলে মোটরসাইকেলের স্টার্ট বন্ধ হয়ে যায়। তখন পাশের ইটাখলা থেকে তিন যুবক বেরিয়ে এসে তাদের ধরে ইটাখলার ভেতর নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে ধর্ষণকারীরা স্বামীসহ মোটরসাইকেলটি নিয়ে চলে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং ওই নারীকে থানায় নিয়ে আসে।

এসপি সার্কেল আরো জানান, ওই নারীকে হোন্ডায় করে বেড়ানোর সময় কথিত স্বামীর ফোনে বারবার ফোন আসছিল। ধর্ষণ ঘটনার পর স্বামীসহ হোন্ডা নিয়ে তারা চলেও যায়। এতে বিষয়টি রহস্যজনক মনে হচ্ছে।

 

"