শ্রীমঙ্গলে নিলামে রেকর্ড মূল্যে বালু বিক্রি

প্রকাশ : ০৮ জুন ২০১৯, ০০:০০

শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

শ্রীমঙ্গলে সরকারি নিলাম ডাকে জব্দকৃত ৮৫ হাজার ঘনফুট বালু বিক্রি হয়েছে ২৮ লাখ টাকায়। শ্রীমঙ্গলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ দরে বালু বিক্রি হয়। গত মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স হলে এই নিলাম ডাক অনুষ্ঠিত হয়।

নিলাম কমিটি সূত্র জানায়, কমিটির আহ্বায়ক সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাহিদুল আলমের পরিচালনায় ২১ জন দরদাতা প্রত্যেকে ১০ হাজার টাকা করে জামানত দিয়ে প্রকাশ্য নিলাম ডাকে অংশ নেন। এতে শ্রীমঙ্গল উপজেলার জনৈক জলিল মাহমুদ নামে এক ব্যক্তি সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে ৩৪ টাকা দরে ৮৫ হাজার ২০০ ঘনফুট বালু ২৮ লাখ ৯২ হাজার (১৫ ভাগ ভ্যাট ও ৫ ভাগ আয়করসহ) টাকায় ক্রয় করেন।

স্থানীয় বালু ব্যবসায়ীরা জানান, শ্রীমঙ্গল বর্তমান বাজারে প্রতি ঘনফুট বালুর সরকারি মূল্য ১ টাকা ৫০ পয়সা, যা পরিবহনসহ ১৫০ ঘনফুটের এক ট্রাক বালুর ক্রয়মূল্য ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা এবং বিক্রয়মূল্য ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৪০০ টাকা। কিন্তু নিলামে ৩৪ টাকা ঘনফুট দরে ক্রয় করা পরিবহনসহ প্রতি ট্রাক বালুর মূল্য দাঁড়াবে ৬ হাজার টাকা। যা শ্রীমঙ্গলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ দরে বালু ক্রয়ের রেকর্ড। এ নিয়ে বালু ব্যবসায়ীদের মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

গত ২৮ মে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে দিনব্যাপী উপজেলার ভূনবীর ইউনিয়নে ইউপি চেয়ারম্যান চেরাগ আলীর তিনটি বালু মহালসহ বিভিন্ন অবৈধ বালু মহালে অভিযান পরিচালিত হয়। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শাহিদুল আলম, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেল) আশরাফুজ্জামান ও থানা পুলিশ ফোর্স অভিযানে অংশ নেন। অভিযান চলাকালে উপজেলার ভূনবীর ইউপির ইছামতী চা বাগান এলাকা থেকে অবৈধভাবে গভীরে গর্ত করে মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করার কাজে ব্যবহৃত ইউপি চেয়ারম্যান চেরাগ আলীর মালিকানাধীন চারটি শ্যালো মেশিন, পাইপ ও বালু জব্দ করে সাতগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান মিলন শীলের জিম্মা দেওয়া হয়। পরে একই ইউপির জৈতা ছড়ার শাসন, ইসলামপাড়া ও ভূনবীর গ্রামের মুসাব্বির মিয়া, কবির মোল্লা, কদর আলী, আসলম মিয়া, ঠান্ডা মিয়া, জলিল মিয়া ও হাওর মেম্বারের মালিকানাধীন অবৈধ বালু মহাল থেকে (মোট ছয়টি স্থান থেকে) বিপুল পরিমাণ বালু জব্দ করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জিম্মায় রাখা হয়।

এদিকে গত ১ জুন সন্ধ্যায় প্রশাসনের জব্দকৃত বালু পাচারকালে উপজেলার ভূনবীর চৌমহনা এলাকা থেকে স্থানীয় ভূনবীর ইউপি চেয়ারম্যান চেরাগ আলীর মালিকানাধীন একটি ট্রাক জব্দ করে থানা পুলিশ। পরে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আদালত বসিয়ে চেয়ারম্যান চেরাগ আলীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে। গত ১ জুন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যালয় থেকে ৪ জুন দুপুর ১২টায় জব্দকৃত বালুর প্রকাশ্য নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, নিলাম ডাকের শর্ত অনুযায়ী আগামী ১০ দিনের মধ্যে যেখানে যে অবস্থায় আছে সেখান থেকে বালু অপসারণ করে নিতে হবে এবং বালু অপসারণের কাজে তিন টনের বেশি ভারী যানবাহন ব্যবহার না করার নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

 

"