কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় বর্ষবরণে প্রস্তুত সিলেট

প্রকাশ : ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

সিলেট মহানগর প্রতিনিধি

বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ উদ্যাপনে প্রস্তুত সিলেট। সিলেট নগরের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা আয়োজন করেছেন বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানের। সূর্য উদয়ের সঙ্গে সঙ্গে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে থাকছে মঙ্গল শোভাযাত্রার। নির্বিঘেœ অনুষ্ঠান উদ্যাপনে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে বিভিন্ন সংগঠন আলাদা আলাদাভাবে বর্ষবরণে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। সঙ্গীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজ মাঠে আয়োজন করেছে বর্ষবরণ উৎসবের। সকাল ৭টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নাচে-গানে আনন্দলোক মাতিয়ে রাখবে সংস্কৃত কলেজ প্রাঙ্গণ। ব্লু-বার্ড স্কুল মাঠে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে শ্রুতি। সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়েও নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদ্যাপন করা হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক কলাকুশলী সবাই খুব ব্যস্ত সময় পার করছেন।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটি বৈশাখ উপলক্ষে মেলা, বাউলগান, পুতুল নাচ, সাপ খেলা, বানর খেলা, জাগলিং, সাংস্কৃতিক পরিবেশনা, আনন্দ শোভাযাত্রা, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী জিনিসপত্রের প্রদর্শনীসহ বর্ণাঢ্য আয়োজন করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচারাল ক্লাবের উদ্যোগে এই আয়োজন করা হয়েছে।

এছাড়াও নববর্ষ উপলক্ষে সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে নগরের চাঁদনীঘাট এলাকায় আয়োজন করা হয়েছে সপ্তাহব্যাপী বৈশাখী মেলার। এছাড়া প্রতিবারের মতো সিসিক এবারও বছরের নতুন সূর্যকে বরণ করতে পহেলা বৈশাখ সকাল ৯টায় নগরে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করবে।

সিলেটে বর্ষবরণে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা বর্ষবরণ অনুষ্ঠান নির্বিঘেœ পালন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পুলিশের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পাশাপাশি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব-৯) এর পক্ষ থেকে থাকবে টহল বাহিনী ও নিরাপত্তা চৌকি। সার্বক্ষণিক নজরদারিতে থাকবে সাদা পোশাকের পুলিশ ও গোয়েন্দা বাহিনীর সদস্যরা।

সিলেট মহানগর পুলিশ জানায়, বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজক কর্তৃপক্ষকে নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক-নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ করে প্রয়োজনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিতে বলা হয়েছে। নগরে কোনো ধরনের আতশবাজি, পটকা ফাটানো যাবে না। আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে সিসিটিভি স্থাপনের পরার্মশ দেওয়া হয়েছে। নগরজুড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. জেদান আল মুসা বলেন, ‘এ উৎসবকে ঘিরে এরই মধ্যে তিন স্থরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গঠন করেছি। পাশাপাশি মহানগরীর বাসিন্দাদের সতর্ক করে ১৩টি নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।’

এরই মধ্যে মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা থেকে মহানগরজুড়ে তল্লাশি অভিযান চালায় পুলিশ। আর নগরে নির্বিঘেœ অনুষ্ঠান করতে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিরাপত্তা চৌকি বসিয়ে তল্লাশি চালাবে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৯) এর সদস্যরা।

এ ব্যাপারে সিলেট র‌্যাব-৯-এর সিনিয়র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘নির্বিঘেœ অনুষ্ঠান পালনে র‌্যাবের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা চৌকি বসানো হবে। সাদা পোশাকের গোয়েন্দা নজরদারিরও ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

 

"