আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

সামান্য বৃষ্টিতেই মাঠে হাঁটু পানি : দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশ : ১৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

সামান্য বৃষ্টি হলে মাঠে জমে হাটু পানি। বেশি বৃষ্টি হলে বন্ধ থাকে বিদ্যালয়। যার ফলে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। এ দৃশ্য নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ পৌরসভার আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।

সোনারগাঁ পৌরসভার আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পৌর এলাকার ঐতিহাসিক পানাম নগরের পাশে অবস্থিত। আশপাশের রাস্তা ও অন্যান্য স্থাপনার চেয়ে বিদ্যালয় মাঠ চত্বর নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি জমে যাতায়াতের পথও বন্ধ হয়ে যায়। টানা ৩/৪ দিন বেশি বৃষ্টি হলে পানি প্রবেশ করে শ্রেণিকক্ষে। গত ১০ বছর ধরেই বিদ্যালয়ের মাঠে পানি জমে থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে হাঁটু পানি মাড়িয়ে শ্রেণিকক্ষে যেতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। অতিবর্ষণ হলে মাঠে কোমর পর্যন্ত পানি জমে থাকে। তখন শিক্ষার্থীরা স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। এমন অবস্থায় বাধ্য হয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে অঘোষিত ছুটি হয়ে যায়। সোনারগাঁ পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে ১০ বছর ধরে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে শিক্ষার্থীদের এমন দুর্ভোগ পোহাতে দেখে স্থানীয় এলাকাবাসী একাধিকবার ইউএনও এবং শিক্ষা কর্মকর্তাকে বিষয়টি লিখিতভাবে জানিয়েও কোনো ফল পাননি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

সরেজমিন বিদ্যালয়টিতে গিয়ে দেখা যায়, সামান্য বৃষ্টিতেই বিদ্যালয়ের মাঠে পানি জমে রয়েছে। ছোট ছোট কোমলমতি শিশুরা বাধ্য হয়েই পানি মাড়িয়ে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করছে।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক সাবিনা সুলতানা জানান, বৃষ্টি হলে শিশুরা স্কুলে আসতে চায় না। মাঠে পানি মাড়িয়ে তাদের আসা-যাওয়া করতে হয়। একারণে অনেক সময় শিশুরা জ্বর ও ঠান্ডাজনিত রোগে ভোগে। ফলে বৃষ্টি হলেই শিশুদের উপস্থিতি কমে যায়।

তিনি আরো জানান, বিদ্যালয়ের মাঠটি উঁচু করার জন্য এবং বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য একাধিকবার উপজেলা শিক্ষা অফিসে লিখিতভাবে অনুরোধ করেও কোনো ফল পাইনি। তাছাড়া বিদ্যালয়ের একটি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ। পুরাতন এ ভবন ভেঙে নতুন ভবন নির্মাণের জন্য অনুরোধ করা হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, প্রতি বছরই বৃষ্টির কারনে বিদ্যালয় মাঠে পানি জমে শিক্ষার্থীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, বিদ্যালয়টির জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

"