গোলাপগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন

উদ্বোধনের ৪ মাসেও চালু হয়নি কার্যক্রম

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি

ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের ৬ বছর আগে আর উদ্বোধনের পেরিয়ে গেছে ৪ মাস। এর মধ্যে উপজেলায় ঘটেছে একাধিক ভয়াবহ অগ্নিকা-। বজ্রপাত থেকে আগুন লেগে রাইজানে মারা গেছেন মারা গেছেন ৫ জন। সিলেন্ডার বিস্ফোরণে পুড়ে গেছে চলন্ত গাড়ি। বাদ যায়নি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানসহ কৃষকের গোয়ালঘর। সময়মতো দমকল বাহিনী আসতে না পারায় বাড়তি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। তারপরও চালু হয়নি সিলেটের গোলাপগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কোনো কার্যক্রম।

গোলাপগঞ্জ পৌর এলাকার ৩ কিলোমিটার জুড়ে ৮টি তেল-গ্যাস কূপ রয়েছে। যেখানে অগ্নিকা-ের সূত্রপাত হলে বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হবেন উপজেলাবাসী। বিগত সময়ে গোলাপগঞ্জ আহমদ খান রোডের একটি মার্কেটে অগ্নিকা-ের সূত্রপাত ঘটলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এরই ধারাবাহিকতায় গোলাপগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণের লক্ষ্যে দুবার ভিত্তিপ্রস্থর করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের প্রথমদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশে একখ- জমি অধিগ্রহণ করে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নামে সাইনবোর্ড সাঁটানো ছিল বেশকিছু দিন। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে এ জমিটি হাত ছাড়া হয়ে যায়। এরপর পৌরসভার দাড়িপাতন এলাকার বিশিষ্ট শিল্পপতি শামিম আহমদ রাসেলের প্রায় ৩ কোটি টাকা মূল্যের একখ- জমি দান করেন ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের জন্য। জমিটি নিচু হওয়ায় শামিম আহমদ নিজ উদ্যোগে কিছু মাঠি ভরাট করার পর ২০১৩ সালে স্থানীয় এমপি সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ স্টেশনের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। ডিজিটাল সাইনবোর্ড না থাকলেও একটি অস্থায়ী ব্যানারের মাধ্যমে ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের নিশানা রাখা হয়। দীর্ঘ ৫ বছরে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভবনের কাজ শেষ হলে গত বছরের ১৯ অক্টোবর এটির উদ্বোধন করেন এমপি। উদ্বোধনের প্রায় ৪ মাস অতিবাহিত হলেও এখনো কোন কার্যক্রম চালু করা হয়নি।

সংবাদ মাধ্যমের তথ্য সূত্রে দেখে যায়, ২০১৫ সালের শেষের দিকে একটি, ২০১৬ সালের দুটি, ২০১৭ সালে ৪টি অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ২৮ জানুয়ারি আবদুর রহমান সিএনজি স্টেশন ও ৯ নভেম্বর ঢাকা দক্ষিণ-বিয়ানীবাজার বাইপাস সড়কের রায়গড় এলাকায় রনি এডিবল অয়েল কোম্পানির সয়াবিন তেলবাহী একটি কাভার্ডভ্যানে অগ্নিকা- ঘটে। এমন কি ২৯ ডিসেম্বর পৌর এলাকার টিকরবাড়ীস্থ রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড (আরপিজিসিএল) পাইন লাইন বিস্ফোরণের ঘটনায় দুজন গুরুতর আহত হন। সবচেয়ে বড় প্রাণঘাতী অগ্নিকা- ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ। সে সময় বজ্রপাত থেকে গ্যাস রাইজারে আগুন লেগে একটি কলোনির বসবাসকারী ৫ জন মানুষ মারা যান। নিহতদের মধ্যে এক শিশু, গর্ভবতী দুই মহিলা ও দুই পুরুষ ছিলেন। চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি, ৩০ জানুয়ারি ও সর্বশেষ ১৬ ফেব্রুয়ারি গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণে কোমলপানীয় পরিবেশক মেসার্স আরপি ট্রেডার্সের গোদামঘরে আগুন লাগে।

জানতে চাইলে এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মামুনুর রহমান বলেন, ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভবনের উদ্বোধন করা হয়েছে, কিন্তু এখনো সেবামূলক কাজ শুরু হয়নি। খুব শিগগিরই কার্যক্রম শুরুর লক্ষ্যে জেলা স্টেশনের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন গোলাপগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক তনয় বিশ্বাস বলেন, গোলাপগঞ্জের স্টেশনের কাজ প্রায় শেষ, আশা করি দু-এক মাসের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে।

 

"