গোপালগঞ্জে দলবদ্ধ ধর্ষণ পাইকগাছায় প্রতিবন্ধী

প্রকাশ : ১১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

গোপালগঞ্জ ও পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জে এক তরুণীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে। গত মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার মেরী গোপীনাথপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। অপরদিকে খুলনার পাইকগাছা উপজেলার পল্লীতে প্রতিবন্ধী এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। সে স্থানীয় চারবান্ধা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী। গত শনিবার মধ্যরাতে ঘটনাটি ঘটে।

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী মঙ্গলবার জেলা সদরে ডাক্তার দেখাতে যান। তিনি জানান, সন্ধ্যায় বাড়ি ফেরার পথে একটি মাহেন্দ্র গাড়িতে (থ্রি হুইলার) ওঠেন। কিন্তু চালক তাকে নির্ধারিত স্থানের না নামিয়ে মেরী গোপীনাথপুর এলাকায় নিয়ে যায়। এ সময় গাড়িতে আরও দুজন যুবক ছিল। তিনজনে মিলে জোর করে তাকে পাশের ধান ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায় তারা। পরে স্থানীয়রা দেখে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে দুই যুবককে আটক করেছে পুলিশ। চিকিৎসক ডা. অসিত কুমার মল্লিক বলেন, আমরা তাকে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছি। তবে ডাক্তারি পরীক্ষার পর জানা যাবে ধর্ষিত হয়েছেন কি না। গোপীনাথপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক হযরত আলী বলেন, এখন পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি জানান, ধর্ষণে শিকার শিক্ষার্থীর বাবা জানান, গত শনিবার রাত ২টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে ওই শিক্ষার্থী স্থানিয় বিপ্র সরকারের বাড়ীর পাশে গোলবাগানে যায়। ফেরার পথে কয়েকজন যুবক তার চোখ-মুখ বেঁধে নির্যাতন ও ধর্ষণ করে। পরে বাড়ীর লোকজন জানতে পেরে তাকে প্রথমে পাইকগাছা হাসপাতালে ভর্তি করে। শিক্ষার্থীর পিতার দাবি, কামরুল ইসলাম গাজী নামে স্থানীয় এক ঘের মালিক তার মেয়ের সর্বনাশ করেছে। বিষয়টি থানায় জানান হলে ওসি (তদন্ত) রহমত আলী তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার করার জন্য পাঠায়। ওসি এমদাদুল হক শেখ জানান, এ ব্যাপারে আইনি প্রক্রিয়ার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

"