মাদারীপুরে ব্যানার-ফেস্টুনের অত্যাচারে মরে যাচ্ছে গাছ

প্রকাশ : ১১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

আব্দুল্লাহ আল মামুন, মাদারীপুর

মাদারীপুরের গাছে গাছে বড় বড় পেরেকে ঝুলছে সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার-ফেস্টুন। পরিবেশবান্ধব গাছের প্রতি মানুষের এ অত্যাচারে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বিনষ্টের পাশাপাশি অক্সিজেনের ফ্যাক্টরিখ্যাত শত শত গাছ শুকিয়ে মরে যাচ্ছে। জেলার সদর ও রাজৈর উপজেলায় বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতাল, ডাক্তার এবং বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক পণ্যের প্রচারণার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে গাছ। এসব অবৈধ সাইনবোর্ড দীর্ঘদিনেও অপসারণ না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পরিবেশবাদী সংগঠনের কর্মকর্তারা।

জেলার সদর উপজেলার প্রায় সর্বত্র এবং রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট বন্দরের ইউএস মডেল হাপাতালের বিজ্ঞাপনে ভরা গাছগুলো। সেই সঙ্গে ঝুলছে সিটি হাপাতাল, ডক্টর’স ল্যাব এন্ড কনসালটেশন, নিউ জমজম প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও বিভিন্ন দোকানের বিজ্ঞাপন। এ সব এলাকার গাছের কোন অংশ এখন আর ফাঁকা নেই। গাছের গায়ে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের শত শত সাইনবোর্ডের কারণে একদিকে যেমন গাছগুলো ঠিক বেড়ে উঠতে পারছে না। তেমন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

রাজৈর পৌর সভাসহ উপজেলার বিভিন্ন ১১টি ইউনিয়নের রাস্তার পাশের গাছে গাছে ঝুলছে ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টারসহ বিভিন্ন ক্লিনিক, ডাক্তার ও হাসপাতালের বিজ্ঞাপন। গাছ পরিবেশের সবচেয়ে বড় বন্ধু হলেও মানুষের নির্মম অত্যাচার থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। বড় বড় লোহার পেরেক ও তারকাটার মাধ্যমে গাছ ও বৈদ্যুতিক খুঁটিকে বিজ্ঞাপনের জন্য ব্যবহার করায় ক্ষুব্ধ নাগরিক সমাজ। পৌর সভার টেকেরহাট থেকে ঢাকা-বরিশাল রোডের রাজৈর বাসস্টান্ড পর্যন্ত মাত্র ৫ কিলোমিটার রাস্তায় শত শত গাছের চিত্র এক। গাছে পেরেক বা তারকাটা ঠুকে সেঁটে দেয়া হয়েছে নামে-বেনামের বহু বিজ্ঞাপন। রাজৈর থানার মোড়ে টানিয়ে দেয়া হয়েছে বিভিন্ন সংগঠনের শুভেচ্ছা বিজ্ঞাপন। এছাড়া রাজৈর উপজেলা পরিষদের আশ-পাশ ঘেঁষে গজিয়ে ওঠা গাছগুলোও রক্ষা পায়নি মানুষের নির্মম অত্যাচার থেকে।

মাদারীপুর পরিবেশবাদী সংগঠন ফ্রেন্ডস অব নেচারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রাজন মাহমুদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষার দায়িত্ব মানুষের। গাছ আমাদের পরম বন্ধু। গাছ আমাদের অক্সিজেন দেয়, ছায়া দেয়, ফল-ফুল ও জ্বালানি দিয়ে আমাদের বাঁচিয়ে রাখে। ঝড়-বন্যা থেকে রক্ষা করে। অথচ ইদানিং জেলার সর্বত্র দেখা যাচ্ছে এক শ্রেণির মানুষ নিজেদের স্বার্থে গাছে গাছে বড় বড় পেরেক ঠুকে বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন ঝুলিয়ে দিয়ে প্রকৃতির প্রতি নির্মম আচরণ করছে। আমাদের দাবী পরিবেশ রক্ষায় প্রশাসন এ বিষয়টি অতি গুরুত্বের সঙ্গে দেখবেন এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন। গাছ থেকে এ সব সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণে দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন। এসব মহৎ কাজে আমাদের সংগঠন প্রশাসনের পাশে থাকবে।’

রাজৈর পৌর মেয়র শামীম নেওয়জ বলেন, ‘অনুমতি ছাড়া গাছে গাছে টানানো বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের এসব অবৈধ বিলবোর্ড, সাইনবোর্ড দ্রুত সময়ের মধ্যে উচ্ছেদ করা হবে।’

রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহানা নাসরিন বলেন, ‘পৌরসভাসহ উপজেলার ভেতরে কোন গাছ বা স্থাপনায় ব্যানার বিলবোর্ড লাগানো আইনত নিষিদ্ধ।’

 

"