গলাচিপার ১৬ কপাট সুøইসগেট বেহাল

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

পটুয়াখালী প্রতিনিধি
ama ami

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলায় অবস্থিত প্রায় ৬০ বছরের পুরনো ১৬ কপাট স্লুইসগেটটির অবস্থা বেহাল। এক সময় এটি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের পর্যটকদের নিকট আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকলে বর্তমানে এটি তার আবেদন হারিয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গলাচিপা উপজেলার অন্তর্গত গলাচিপা সদর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া-পানপট্টি খালের বাঁধের উপর নির্মিত বোয়ালিয়া ১৬ কপাট স্লইসগেট। যা আগুনমুখা নদীর সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত। উক্ত স্লুইসগেটটি সরাসরি পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়িবাঁধের উপর অবস্থিত। যার মাধ্যমে গলাচিপা সদর ইউনিয়ন, পানপট্টি ইউনিয়নের রতনদী ও তালতলী ইউনিয়নের বর্ষা মৌসুমের পানি নিষ্কাশন হয়ে থাকে। এ ছাড়া উক্ত স্লুইসগেটের ওপর দিয়ে গলাচিপা ও রাঙ্গাবালী উপজেলার হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত। ১৬ কপাটের স্লুইসগেটটি এখন সম্পূর্ন হুমকির মুখে। স্লুইসগেটের উপরে দুই পাশের রাস্তায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কপাটগুলো ভেঙ্গে হেলে পড়েছে। যে কোন মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে। স্থানীয়রা মনে করছেন, দ্রুত সংস্কারের উদ্যোগ না নিলে অকালে হারিয়ে যাবে ঐতিহ্যবাহী এ স্লুইসগেটটি।

স্লুইসগেটের দুই পাড়ের বাসিন্দারা আশঙ্কা করছেন, যে কোন মুহূর্তে রাস্তাসহ স্লুইসগেটটি ধ্বসে পড়ে জোয়ারের পানিতে তলিয়ে ৩টি ইউনিয়নের হাজার একর ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ব্যাপারে গলাচিপা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান হাদি বলেন, এই স্লুইসগেটটি দক্ষিণ বাংলার অন্যতম ঐতিহ্য। বিভিন্ন এলাকার পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থানটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বিষয়টি পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। তারা ব্যবস্থা না নিলে আমাদের কি করার আছে? তার পরও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি যত দ্রুত সম্ভব মেরামতের ব্যবস্থা করে সচল করার। পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সহকারী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান বলেন, স্লুইসগেটটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার খবর শুনে পরিদর্শনে গিয়েছিলাম।

"