কুশিয়ারার বালুমহাল ইজারা না দেওয়ার নির্দেশ

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

মহানগর (সিলেট) প্রতিনিধি
ama ami

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত কুশিয়ারা নদীতে বাংলা নতুন বছর থেকে বালুমহাল হিসেবে লিজ না দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন আদালত। স্থানীদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরকে বিবাদী করে রিট আবেদন করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত রোববার বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বিভাগের একটি বেঞ্চ এই আদেশ জারি করে। আদেশে বর্তমান ইজারা মেয়াদ শেষে পরবর্তীতে বালু মহাল হিসেবে লীজ প্রদানের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। বর্তমানে এই বালুমহালের ইজারা আছে ফেঞ্চুগঞ্জের জামান এন্টারপ্রাইজ নামক একটি প্রতিষ্ঠান। আগামি ৩০ চৈত্র (১৩ এপ্রিল) পর্যন্ত তাদের ইজারার মেয়াদ শেষ হবে। জানা যায়, সুলতানপুর ও কামলপুর মৌজায় অবস্থিত সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা উপর দিয়ে প্রবাহিত কুশিয়ারা নদীতে অবস্থিত ৬.২৫ একরের কুশিয়ারা নদী বালুমহাল রয়েছে। এ বালুমহাল থেকে চুক্তি বহির্ভুত ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদীর পাড় ভেঙে যাওয়া, পরিবেশ ও প্রতিবেশ ব্যবস্থাসহ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা হুমকীর মুখে পরে। এর পরিপ্রেক্ষিতে এলাকাবাসী নির্ধারিত কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিকার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করে। তারপরও কোন প্রতিকার না পেয়ে আইনগত সহায়তা চাইলে জনস্বার্থে রিট আবেদন (মামলা নং ১৪৯৮৭/২০১৮) করে বেলা।

ফেঞ্চুগঞ্জ ইউএনও আয়েশা হক বলেন, ‘বালুমহালের ইজারা সংশ্লিষ্ট বিষয় উপজেলা থেকে নয়, জেলা থেকে দেওয়া হয়। কুশিয়ারা বালুমহালের নিষেধাজ্ঞা সংশ্লিষ্ট অফিসিয়ালি কোনো চিঠি এখনো আমরা পাইনি। চিঠি পেলেই আমরা জেলা অবগত করে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করব।’

"