মতলবে মেঘনা-ধনাগোদা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ

দুই বছরে সোয়া ২ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের সম্ভাবনা

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি
ama ami

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তরে নির্মাণাধীন মতলব সেতুর কাজ শত ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। চলতি বছরের প্রথম দিন থেকেই সেতুর ওপর দিয়ে যান চলাচল শুরু হয়েছে। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুটির উদ্বোধন করেন। সড়ক ও জনপথ বিভাগের মতলব শাখার সহকারী প্রকৌশলী মো. জসীম উদ্দীন গত ৬ জানুয়ারি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ফলে এ অঞ্চলের প্রায় ৭ লক্ষাধিক মানুষের নতুন এক যোগাযোগের সেতুবন্ধন তৈরি হয়।

স্থানিয় সূত্রে জানা যায়, মতলব উত্তর ও দক্ষিণ তথা চাঁদপুর জেলার সঙ্গে ঢাকার দূরত্ব ও সময় বাঁচাতে এলাকাবাসী দীর্ঘ দিন ধরে মতলব বাজার সংলগ্ন মেঘনা-ধনাগোদা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের দাবি করে অসছিলো। দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে ৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে মেঘনা-ধনাগোদা নদীর ওপর সেতুটি নির্মাণের অনুমোদন দেয় সরকার। সেতুটির কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে এবং শেষ হওয়ার নির্ধারিত তারিখ ছিল ২০১৭ সালের ৩০ জুন। পরে সেতুটির নির্মাণ ও এ্যাপ্রোজ কাজ ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে সম্পন্ন করে চলাচলের উপযোগী করা হয়। এদিকে এ সেতুটি নির্মাণের ফলে চাঁদপুর, হাইমচর, শাহরাস্তি, ফরিদগঞ্জ, রামগঞ্জ, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, হাজীগঞ্জসহ পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের মানুষকে আর কুমিল্লা হয়ে না ঘুরে এ পথে স্বল্প সময়ের মধ্যে ঢাকায় যাওয়া সম্ভব হবে।

জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, মতলববাসীর দাবির প্রেক্ষিতে সাবেক ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার প্রচেষ্ঠায় সেতু নির্মাণের প্রকল্পটি হাতে নেয়।

জেলা সওজ বিভাগের তথ্যে মতে, নতুন এ সেতু থেকে আড়াই বছরে সরকারি খাতে টোল জমা হবে প্রায় ২ কোটি ২০ লাখ ৮০ হাজার টাকা। যা ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ রাত ১২ টা থেকে ৩০ জুন ২০২১ পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। মতলবের ঢাকাস্থ ‘টেকবে ইন্টারন্যাশানাল’ নামক একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এর টোল আঁদায়ের দায়িত্ব পান।

প্রাপ্ত তথ্যে মতে আরো জানা গেছে, প্রতি টেইলর ১২৫ টাকা, হেবি ট্রাক ১২৫, ট্রাক ৫০, বাস ৪৫, মিনি ট্রাক ৪০, কৃষি কাজে ব্যবহৃত যান ৩০, মিনি বাস ২৫, সাধারণ যানবাহন ১৫, চার চাকার যান ২০, সিডনি কার ও সিএনজি ১০, মটর সাইকেল ৫ ও মাল ভর্তি ভ্যান ৫ টাকা করে টোর আদায় করা হবে।

"