ভালুকার সিডস্টোর-সখিপুর সড়কের লাউতি সেতুতে ভাঙন

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
ama ami

ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়ক থেকে সংযোগ সড়ক ভালুকার (সীডষ্টোর-সখিপুর) শহিদ শমসের রোডের লাউতি খালের উপর সেতুটির মাঝখানের অংশ ভেঙে পরায় ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। এতে যে কোন মুহূর্তে ভয়াবহ দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, সেতুর মাঝখানের অংশ ভেঙে ঢালাই শুন্য হয়ে রড বেরিয়ে গেলে ওই অংশে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ সেতুর উপরে স্টীলের পাত ও এঙ্গেল বসিয়ে বালি-মাটি দিয়ে হালকা যান চলাচলের ব্যবস্থা করে দেন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সেতুর উভয় দিকের উইং ওয়াল ফেটে সেতু হতে বিচ্ছিন্ন হওয়ার উপক্রম হয়ে গেছে। ভাঙা সেতুর উভয় পাশে মালামাল ভর্তি ভারি যানবাহন আটকা রয়েছে। চালকরা জানায় তারা সেতু ভাঙার খবরটি জানতেন না, না জেনে এই পথে চলে এসেছেন সময় বাঁচাতে। কিন্তু তাদের পক্ষে ঘুরে যাওয়াটাও দ্বিগুন খরচ ও বিড়ম্বনার কারন বলে জানান। অনেক চালকের অভিযোগ ব্রিজটি বন্ধ থাকলেও প্রবেশ পথে কোন নির্দেশনা নেই। কোন কোন গাড়ি থেকে ছোট-বড় আকার ভেদে বিভিন্ন গাড়ি থেকে ১০০-৩০০ টাকা করে নিয়ে ব্রিজ পার হতে দেওয়া হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, ১৯৮২ সালের দিকে এলজিইডি কর্তৃক নির্মিত আরসিসি সেতুটি নিন্মমানের হওয়ার কারনে মেয়াদোর্ত্তীণ হওয়ার আগেই ভেঙ্গে যাচ্ছে। গত কয়েক বছর ধরে জোড়া-তালি ও রঙ লাগিয়ে সংস্কারের নামে মুলত ব্রিজটিকে ব্যবহার অযোগ্যের দিকেই ঠেলে দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। তারা আরও জানান, সীডষ্টোর সখিপুর সড়কটির বিভিন্ন অংশে খানা-খন্দে ভরে থাকায় বর্ষা এলেই পানি জমে যান চলাচলে বিঘœœ ঘটে। এ ব্যস্ত সড়কটিতে প্রতিদিন লোহা ফ্যাক্টরির ভারি যানসহ কয়েকটি কারখানার শত শত গাড়ি ও অসংখ্য যাত্রী ও মালবাহী গাড়ি চলাচল করে। ছোট গাড়িগুলো প্রায়ই গর্তে পড়ে দুর্ঘটনায় পড়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা আহত হচ্ছে। এলাকাবাসীর জোর দাবি দ্রুত এই ভাঙা ব্রিজটি পুণ:নির্মাণ বা স্থায়ীভাবে যান চলাচলের উপযোগী করে তোলা হোক।

উপজেলা এলজিইডি কর্তৃপক্ষ জানায়, ভারি যানবাহন চলাচলের কারনে সেতুটির ক্ষতি সাধন হয়েছে। তারা ভারি যানবাহন না চলার জন্য লাল পতাকা ও নিষেধ্বাজ্ঞা সাইনবোর্ড টানিয়ে সার্বক্ষনিক পাহারা বসিয়েছেন। তাদের অবস্থানের সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকলেও তাদের অর্বতমানে সকল ধরনের যান চলাচলে ব্রিজটি আরও ঝুঁকিপুর্ণ হয়ে পড়ছে। সেতু ভেঙে পড়ার বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

"