নন্দীগ্রাম মহাসড়কে ধানের হাট

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি
ama ami

বগুড়ার নন্দীগ্রামে মহাসড়কের ওপর বসছে ধানের হাট। এতে সড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে, ঘটছে দুর্ঘটনা। ঝুঁকি নিয়ে যান চলাচল করলেও এ বিষয়ে কার্যকরি কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না পুলিশ। স্থানীয়রা জানান, এ অঞ্চলের সর্ববৃহৎ ধানের হাটটি হচ্ছে রনবাঘা হাট। সপ্তাহের প্রতি সোমবার ও শুক্রবার রনবাঘায় ধানসহ বিভিন্ন পণ্য সামগ্রীর হাট বসে। হাটের জায়গা অবৈধ দখলদারদের কবলে চলে যাওয়ায় হাটের জায়গা সংকট দেখা দিয়েছে। যার ফলে প্রায় দুইযুগ ধরে বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের ওপর ধানের হাট বসছে। রনবাঘায় হাটের দিন বিপুল পরিমান ধান কেনাবেচা হয়। প্রতিহাটে মহাসড়কের ওপর ট্রাক, ভটভটিসহ বিভিন্ন যানবাহনে ধান লোড করা হচ্ছে। আবার যানবাহন থেকে বস্তা নামিয়ে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে। হাট চলাকালীন পর্যন্ত মহাসড়ক ঘিরে ব্যাপক ভিড় দেখা যায়। হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতা ও সাধারণ মানুষ মহাসড়কের ওপর এবং ঘেঁষে এলোমেলো চলাফেরা করে। যে কারণে বাস-ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন দীর্ঘ সময় ধরে থেমে থাকে।

ট্রাক চালক আশরাফ হোসেন ও বাস চালক তোতা মিয়া বলেন, হাটের দিন মহাসড়ক জুড়ে হাট বসায় ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থাকতে হয়। এতে আমাদের যেমন মালামাল বহনে কালক্ষেপন হয়। পাশাপাশি যাত্রীদের কষ্ট ও দুর্ভোগ হয় তার চেয়ে বেশি। এদিকে কুন্দারহাটের একই অবস্থা। প্রতি রোববার ও বুধবার হাট বসে। সে হাটটি মহাসড়কের উপর হওয়ায় অনেক সময় যানজটের সৃষ্টি হয়। হাটের জায়গা দিন দিন অবৈধ দখলদারদের কবলে চলে যাওয়ায় হাটের জায়গা সংকট দেখা দিয়েছে। যার ফলে মহাসড়কের ওপরেই ধানের বেঁচাকেনা চলছে।

নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক আব্দুল বারী বলেন, মহাসড়কের দু’পাশে অবৈধ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠার কারণে হাটের জায়গা সংকট সৃষ্টি হয়েছে। অবৈধ উচ্ছেদ করার জন্য প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

"