উখিয়ায় রেজু খালের ওপর সেতুটি ধসের আশঙ্কা

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার উপকূলীয় জনপদ জালিয়াপালং ইউনিয়নের পূর্ব পাইন্যাশিয়া রেজুখালের ফুটব্রিজটি যেকোন সময় ধসে পড়ার আশঙ্কা করছে গ্রামবাসী। ১৯৯৯ সালে নির্মিত এ ফুটব্রীজটি ব্যবহার করে রাজাপালং-রতœাপালংসহ বৃহত্তর জালিয়াপালং ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষ যোগাযোগ রক্ষা করে আসছে। নির্মাণের পর থেকে এ পর্যন্তও ব্রিজটি সংস্কার করা হয়নি।

রেজুখালের জোয়ার-ভাটার তীব্র স্রোতে ও নির্বিচারে বালি উত্তোলনের ফলে ফুটব্রিজের সংযোগ সড়কটি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। গ্রামবাসী বালির বস্তা দিয়ে সংযোগ সড়কটি চলাচলের উপযোগী করে তুললেও এটি যে কোন সময়ে ধ্বসে পড়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। বড়–য়াপাড়া ও পূর্ব পাইন্যাশিয়া গ্রামের লোকজন জানান, বঙ্গোপসাগরের সঙ্গে সংযুক্ত এ রেজুখালে নিয়মিত জোয়ার-ভাটা হয়ে থাকে। বর্ষাকালে পাহাড়ী ঢল আর জোয়ার ভাটার অথৈ পানির স্রোতে ব্রীজের সংযোগ সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। বড়ুয়াপাড়া গ্রামের দিনেশ বড়–য়া জানান, এলাকাবাসীর নিজস্ব অর্থায়নে কাঠ দিয়ে সংযোগ সড়ক সংস্কার করা হলেও তা বেশি দিন ঠিকেনি। খালের বিপরীতে স্পার্ক না থাকার কারণে সরাসরি পানির স্রোত ফুটব্রীজের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে সংযোগ সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় পূর্ব পাইন্যাশিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে স্কুলে আসা যাওয়া করতে হতো। পরে স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের সহযোগীতায় গ্রামবাসী স্ব-উদ্যোগে উক্ত সংযোগ সড়কে বালির বস্তা দিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করেন। পূর্ব পাইন্যাশিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিরিন আকতার জানান, তার স্কুলের প্রায় ৩ শতাধিক শিক্ষার্থীর নিরাপদ যাতায়তের স্বার্থে ব্রীজটি নতুন করে নির্মাণ করা অতীব জরুরী হয়ে পড়েছে।

জালিয়াপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী জানান, রেজুখালের পূর্ব পাইন্যাশিয়া ব্রীজটি পুনঃনির্মাণের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) বরাবরে বেশ কয়েকবার আবেদন করা হয়েছে। তারা কথা দিয়েছে ব্রীজটি পুনঃনির্মাণের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে উপজেলা প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম জানান, রেজুখালের পাইন্যাশিয়া দীর্ঘ ৬০ মিটার ফুটব্রীজটি পুণ:নির্মাণের জন্য একটি প্রাক্কলন তৈরি করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে এ ব্রীজটির নির্মাণ কাজ নির্বাচনের পরপরই শুরু করা হবে বলে তিনি জানান।

"