ময়মনসিংহ-৮

মহাজোট থেকে দলীয় প্রার্থী চায় আ.লীগ

প্রকাশ : ২৫ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

মহজোটের সঙ্গে আসন ভাগাভাগিতে ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ^রগঞ্জ) সংসদীয় আসনটি জাতীয় পার্টির দখলে যাচ্ছে এমনটাই নিশ্চিত স্থানীয় নেতাকর্মীরা। আ.লীগের দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন বঞ্চিত হলে জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে এলাকায় নামতে না দেওয়ার হুশিয়ারিসহ কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। আ.লীগের দলীয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানিয়ে গত শুক্রবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে এসব হুশিয়ারি করেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

ঈশ^রগঞ্জ সংসদীয় আসন থেকে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম। তিনি ১৯৮৮ সালেও এ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। মহাজোট থেকে ফখরুল ইমাম মনোনয়ন পাচ্ছেন এমনটি প্রায় নিশ্চিত। এ অবস্থায় জাতীয় পার্টির প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে কঠোর কর্মসূচি পালনের প্রস্তুতি শুরু করছে স্থানীয় আ.লীগ। ইতোমধ্যে জাতীয় পার্টির সাংসদ ফখরুল ইমামের বাড়িতে অগ্নিসংযোগের চেষ্টা, দলীয় কার্যালয়ে হামলা, দলীয় সম্পাদককে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। জাতীয় পার্টির দলীয় কার্যালয়ের কার্যক্রম চলছে পুলিশ প্রহরায়। বেশ কিছু দিন ধরে জাপার সাংসদকে হঠাতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করলেও তা কোনো কাজেই আসছে না। জাতীয় পার্টির সাংসদ ফখরুল ইমামই জোট থেকে এ সংসদীয় আসনে ফের মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন। তবে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

জাতীয় পার্টির সাংসদকে বহিরাগত আখ্যা দিয়ে এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আ.লীগের প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি পূণবিবেচনা করার দাবি জানিয়ে গত শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিল বের করে সাবেক সাংসদ ও কেন্দ্রিয় কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. আবদুছ ছাত্তারের সমর্থকরা। সাবেক পৌর সভার মেয়র ও পৌর আ.লীগের সভাপতি মো. হাবিবুর রহমানের বাসবভনের সামনে থেকে মিছিল বের হয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এলাকায় বিজয় চত্বরে দাঁড়িয়ে সমাবেশ করেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। এতে পৌর সভাপতি মো. হাবিবুর রহমান হাবিব, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবু হানিফা, সোহাগী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, সরিষা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান ভুঁইয়া, মগটুলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মামুন, উচাখিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ও বড়হিত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শাহ জালাল ফরাজীসহ আ.লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মামুন বলেন, জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হলে এলাকার মানুষ রাস্তাঘাটে আত্মাহুতি দেবে। তাই দলীয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানান তিনি। সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হানিফা বলেন, আমরা এখনও আশাবাদি আ.লীগের দলীয় প্রার্থী আমরা পাব। জনগন বহিরাগত এমপি চায় না। জনগন ২০১৪ সালের পূণরাবৃত্তি দেখতে চায় না। যদি এমন হয় তবে সকল স্তরের মানুষে রাস্তায় নেমে আসবে।

"