বরগুনা-১

আ.লীগে আস্থা শম্ভু, বিএনপিতে জট

প্রকাশ : ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি

বরগুনা-১ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে পুনরায় বর্তমান সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে মনোনায়ন দেয়া হচ্ছে। একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী থাকলেও বর্তমান এমপি’তেই আস্থা রাখছে দলটি। মতবিরোধ থাকলেও নির্বাচনকে সামনে রেখে এ আসনে ক্ষমতাসীন দল আ.লীগ অনেক আগে থেকেই মাঠে নেমেছে।

চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি। ধারাবাহিকভাবে চারবার নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি অবহেলিত জনপদ বরগুনাকে আধুনিক বরগুনায় রূপান্তরে মুখ্য ভূমিকা পালন করার কারণে দলের নেতাকর্মী থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত প্রায় সবাই তাকেই এখানে নৌকার প্রার্থী করছেন।

নির্বাচনী এলাকায় তিনি যোগাযোগ ব্যবস্থা, চিকিৎসাসেবা, শিক্ষাব্যবস্থা এবং বিদ্যুৎ পরিস্থিতির অভূতপূর্ব উন্নয়নসহ গত দশ বছরে অনেক কাজ করেছেন। তাঁর তত্ত্বাবধানে তালতলীতে জাহাজ নির্মাণ শিল্প, কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, আমতলী-পুরাকাটা পয়েন্টে পায়রা সেতুর নির্মাণকাজ সহ বেশ কিছু উন্নয়ন কর্মকান্ড শুরু হয়েছে।

এদিকে আসনটি থেকে বিএনপির বলার মতো অবস্থান না থাকলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুককে কেন্দ্র করে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

জেলা আ.লীগ এর নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আসনটি থেকে আ.লীগের প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু অনেকটা নিশ্চিত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে শম্ভু বলেন, ‘জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এখানে আওয়ামী লীগকে গোপালগঞ্জ এর মতো শক্তিশালী করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সদিচ্ছায় গত দশ বছরে এখানে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। গত ২৭ অক্টোবর তালতলী সফরে তিনি বেশ কিছু উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন। আরো কিছু মেগা উন্নয়নমূলক কার্যক্রম চলমান আছে, যা বাস্তবায়ন হলে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই বরগুনার চিত্র আমূল বদলে যাবে। এখানে পায়রা এবং বিষখালী নদীর ওপরে দুটি বৃহৎ সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে, বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে, জাহাজ নির্মাণ শিল্প হচ্ছে, নৌবাহিনীর সুবিশাল ঘাঁটি হচ্ছে।

আসনটিতে আ.লীগের তুলনায় বিএনপির অবস্থান ততটা সবল নয়। তবে এ আসনে জিতে আসতে এবার তারা মরিয়া। ১৯৯৬ সালের ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচন ছাড়া এ আসনে বিএনপির প্রার্থী কখনো জয়ী হতে পারেন নি। নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগামী সংসদ নির্বাচনে এখান থেকে বিএনপির মনোনয়ন চাইবেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, সাবেক সাংসদ মতিউর রহমান তালুকদার। তিনি দাবি করেন, স্থানীয় নেতাকর্মীদের কাছে তিনি জনপ্রিয়। তাই দল তাকেই মনোনয়ন দেবে। জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, মাহাবুবুল আলম ফারুক মোল্লা ও কেন্দ্রীয় নেতা ফিরোজ উজ জামান মোল্লা আগামী সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন চাইবেন। তারাও নিজেদের কে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে দাবি করেন।

"