নবাবগঞ্জে যুবলীগের ২ নেতাকে কুপিয়ে জখম

প্রকাশ : ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি

ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মাসুদ রানা ও সহসভাপতি শাকিলকে কুপিয়ে জখম করার খবর পাওয়া গেছে। গত রোববার রাতে উপজেলার হাসনাবাদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ভূক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, বান্দুরা ইউনিয়নের যুবদলের সভাপতি জিয়াউদ্দিন নেতৃত্বে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জিয়াউদ্দিনের দাবি, তার ফ্রান্স ফেরত ছোট ভাইয় ইখতিয়ারের সঙ্গে পূর্ব দ্বন্দ্বের জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।

আহতদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, বান্দুরা ইউনিয়নের বিএনপির অঙ্গসংগঠন যুবদলের সভাপতি ও স্থানীয় ইউপি সদস্য জিয়াউদ্দিনের ভাই ইখতিয়ার একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। ইখতিয়ারকে মাদক ব্যবসা করতে নিষেধ করে যুবলীগের সহসভাপতি শাকিল। এতে ক্ষিপ্ত হয় ইখতিয়ার ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনার জেরে রোববার রাত ১১টার দিকে শাকিল ও তার তার ভাই রকির উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে যুবদল নেতা জিয়া মেম্বার, তার ভাই ইখতিয়ার, নাহিদ ও ইমরানসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজন সন্ত্রাসীরা। এ সময় জিয়া মেম্বারের আরেক ভাই হান্নান মোবাইলে ডেকে নেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মাসুদ রানাকে। মাসুদ ঘটনাস্থলে যাওয়ার সাথে সাথে তার উপর হামলা করে সন্ত্রাসীরা।

মাসুদের ছোট ভাই বিপ্লব জানান, ইখতিয়ার একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী। তার ভাই যুবদলের সভাপতি জিয়া মেম্বারের সেল্টারে তিনি এলাকায় মাদক ব্যবসায় চালিয়ে যাচ্ছেন। মাদক ব্যবসায় বাঁধা দেওয়ায় আমার ভাইকে হত্যার চেষ্টা করেছে ওরা।

নবাবগঞ্জ থানার ওসি মোস্তফা কামাল জানান, আহত মাসুদের ছোট ভাই বিপ্লব বাদী হয়ে ইখতিয়ারকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ২ জনের নামে মামলা করেছেন।

"