খুলনা-৬

আ.লীগের মনোনয়ন দৌড়ে একাধিক প্রার্থী

বসে নেই জাতীয় পার্টিও

প্রকাশ : ১০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি

খুলনা-৬ আসনে একাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের জন্য আওয়ামী লীগ থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রে দৌড়-ঝাঁপ করছেন। এলাকায় আওয়ামী লীগের পাঁচজন প্রার্থী দীর্ঘদিন ধরে দান-অনুদান নিয়ে ব্যাপক গণসংযোগসহ প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রাখলেও শেষ মুহূর্তে তাকিয়ে আছে কেন্দ্রের দিকে। বসে নেই জোট প্রার্থী জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা শফিকুল ইসলাম মধু ও মোস্তফা কামাল জাহাঙ্গীর।

জানা যায়, কয়রা-পাইকগাছা নিয়ে খুলনা-৬ সংসদীয় আসন। আসনটি একটি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ২৪ হাজার ৮২৯ জন। যার মধ্যে, কয়রায় এক লাখ ৩৭ হাজার ৫২৮ জন ও পাইকগাছায় এক লাখ ৮৭ হাজার ৩০১ জন। দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের নবীন-প্রবীণ মিলে পাঁচজন মনোনয়নপ্রত্যাশী বিভিন্ন জায়গায় প্রতিযোগিতামূলক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর মধ্যে রয়েছেন, বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. নুরুল হক, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিকবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব আলী সানা, সাবেক ছাত্র নেতা আকতারুজ্জামান বাবু ও ইঞ্জিনিয়ার প্রেমকুমার মন্ডল। প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাশায় নৌকা প্রতীক পেতে নিজ পক্ষের দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে গণসংযোগ ও বিভিন্নভাবে শোডাউন অব্যাহত রেখেছে। বিভিন্ন সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ও হয়েছে। সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে নিজেদের তুলে ধরবার চেষ্টা করছে। এদিকে, কোন কোন প্রার্থী প্রতিপক্ষের (স্ব দলের) বিরুদ্ধে সমালোচনাও কম করছে না।

জোটগত নির্বাচন হলে জাতীয় পার্টি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সে ক্ষেত্রে জাপা থেকে প্রার্থী হলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তফা কামাল জাহাঙ্গীর পাইকগাছা-কয়রার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত নির্বাচনী প্রচারণায় ছুটে চলেছেন। তাদের প্রচার-প্রচারণা আওয়ামী লীগের থেকে কোনো অংশে কম নয়।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ও তাদের দলীয় নেতারা জানান, তাদের পক্ষের প্রার্থীই মনোনয়ন পাচ্ছেন বলে তারা আশাবাদী। বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. নুরুল হক জানান, তিনি যেভাবে এলাকায় উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন এবং তার সঙ্গে দলীয় নেতাকর্মীরা থাকায় তিনি আগামী নির্বাচনী মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। অ্যাডভোকেট সোহরাব আলী সানা দল তাকে মনোনীত করলে তিনি নির্বাচন করবেন।

বিএমএ’র দফতর সম্পাদক ডা. শেখ মো. শহিদউল্লাহ জানান, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিকবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমানের বিকল্প কোনো প্রার্থী নেই। সব মিলে দেখা যায়, সব মনোনয়নপ্রত্যাশীরা রয়েছে মহা টেনশনে।

 

"