উলিপুরে তিস্তার পানিতে ভাসমান সবজি চাষ

প্রকাশ : ০৫ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামের উলিপুরে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহায়তায় বুড়িতিস্তা নদীতে ভাসমান সবজি চাষ করা হচ্ছে। নদীতে ভাসমান বেডে তৈরী করে বিভিন্ন রকমের সবিজি ও মসলা চাষ করে এলাকায় চানঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে উপজেলা কৃষি বিভাগ ও স্থানিয় কৃষকরা। কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জমি না থাকলেও বুড়িতিস্তা নদীতে ভাসমান পদ্ধিতে ভূমিহীন কৃষকেরা চাষ করছে শাক-সব্জি। ভাসমান এসব দেখলে মনে হয় বুড়িতিস্তা নদীতে ভাসছে শাক-সব্জির ভেলা। একদিকে লাল শাকসহ বিভিন্ন জাতের সবজি, অন্যদিকে ভাসছে লাউ গাছের ছাউনি। তাতে রয়েছে সাঁরি সাঁরি লাউ, এ যেন এক অণ্য রকম দৃশ্য। বছরের শুরুতে ২ জন কৃষক উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে বুড়িতিস্তা নদীতে ভাসমান পদ্ধতিতে শাক-সব্জি চাষাবাদ শুরু করে স্থানিয় কৃষকরা। সবজি চাষ করে লাভবান হওয়ায় এলাকার অনেক কৃষক উৎসাহিত হয়েছেন।

বুড়িতিস্তা পারের ভূমিহীন কৃষকগণ জানান, আগামীতে তারাও ভাসমান পদ্ধতিতে কীটনাশক ছাড়াই শাক-সব্জি চাষাবাদ করবেন। এলাকাবাসি বলাবলি করছেন, দখল হয়ে যাওয়া বুড়িতিস্তা নদীতে আগামীতে দেখা যাবে ভাসমান সব্জির সাঁরি সাঁরি ক্ষেত। বুড়িতিস্তা পারে গিয়ে কথা হল-আজাদুন্নবী ও রাসেদুজ্জামান নামের ২ জন কৃষকের সঙ্গে। তারা জানান, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের পরামর্শে উপজেলা সদরের অদুরে রামদাস ধনিরাম বলদিপাড়া গ্রামে বুড়িতিস্তা নদীতে ভাসমান বেডে তৈরী করে লাল-শাক, করলা, বরবটি ও লাউ চাষ করেছেন। ইতিমধ্যে বাজারে বিক্রিও শুরু করছেন, ক্রেতাগণ কীটনাশকমুক্ত শাক-সব্জি জানতে পেরে আগ্রহ সহকারে কেনেন। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতা ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষ গবেষনা সম্প্রসারণ ও জনপ্রিয়করণ (ডিআই অংগ) প্রকল্প বাস্তবায়নে বুড়িতিস্তা নদীতে এ চাষাবাদ এলাকার মানুষকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। অনেকে বিকেলে ক্ষেতের কাছে গিয়ে সবজি কিনতে অপেক্ষ করছেন।

 

"