ওয়াক্ফ এস্টেটের কৃষিজমিতে ইটভাটা নির্মাণের অভিযোগ

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

এম এ সাইদ খোকন, আমতলী (বরগুনা)

বরগুনার আমতলী ইউনিয়নের বান্দ্রা গ্রামে ওয়াক্ফ এস্টেটের পাঁচ একর কৃষিজমি দখল করে ইটভাটা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার এ অভিযোগে আবুল বাশার নয়ন মৃধা নামের এক ব্যবসায়ির বিরুদ্ধে আমতলী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন শাহিদা আক্তার সুমি তালুকদার। শাহিদা নিজেকে ওই জমির প্রকৃত মালিক বলে দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে শাহিদা আক্তার সুমি জানিয়েছেন, বান্দ্রা গ্রামের আবুল কাসেম তালুকদারের ওয়াকফা এস্টেটের ওই পাঁচ একর কৃষি জমির মালিক পৈত্রিক সূত্রে শাহিদা ও তার ভাই রুপক তালুকদার। এই জমি জোরপূর্বক দখল করে আমতলী নতুন বাজার বাঁধঘাট এলাকার বাসিন্দা আবুল বাশার নয়ন মৃধা ‘জিমি ব্রিকস’ নামে একটি ইটভাটা নির্মাণ করেন। ইটভাটা নির্মাণে বাঁধা দিলে নয়ন মৃধা তাদেরকে মারধর এবং হত্যার হুমকি দেয়। এ বিষয়ে আমতলী থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন তারা। পরে শালিস বৈঠকে প্রাপ্য জমি ফিরে পেতে রায়ও পান শাহিদা আক্তার সুমি।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, বাংলাদেশ ওয়াকফ এস্টেটের অতিরিক্ত সচিব শহিদুল আলম ২০১৭ সালের ১২ নভেম্বর বরগুনার জেলা প্রশাসক ও জেলা ওয়াকফ এস্টেটের সভাপতিকে ওই জমিতে পুকুর খনন বন্ধ ও ইটভাটা নির্মান বন্ধের জন্য চিঠি প্রদান করেন। কিন্তু নয়ন মৃধা সে চিঠি অমান্য করে ইটভাটা নির্মাণ ও পুকুর কাটা অব্যাহত রাখেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আমতলী সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোতাহার উদ্দিন মৃধা, জমির আরেক মালিক দাবিদার রুপক তালুকদার, বর্গাচাষী রুমেন হাওলাদার, মস্তফা হাওলাদার ও সোহেল মৃধা।

এ ব্যাপারে আবুল বাশার নয়ন মৃধা জানিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ন মিথ্যে। তার নিজের ক্রয় করা রেকর্ডিও জমিতে সরকারী নিয়ম মাফিক ইটভাটা নির্মাণ করেছেন। তার বিরুদ্ধে সুমি গংদের দায়ের করা মামলা মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায় তা খারিজ হয়ে গেছে। পরবর্তীতে এ ব্যাপারে সুমি গংদের বিরুদ্ধে তিনি মানহানি মামলা করেছেন, যা চলমান রয়েছে।

নয়ন মৃধা অভিযোগ করে আরও জানান, গত ৫ অক্টোবর রুমেন হাওলাদারের নেতৃত্বে তার ইটভাটায় হামলা ভাংচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় আমতলী থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগকারীরা হত্যা ও মাদক মামলার আসামি।

 

"