মহাসড়কে ছোট যান চলাচল বন্ধ

কমেছে দুর্ঘটনা, বেড়েছে দুর্ভোগ

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া অঞ্চলে মহাসড়কে চলাচল নিষিদ্ধ বাহন বন্ধ হওয়া সড়ক দূর্ঘটনার হার দৃশ্যমান পর্যায় কমে এসেছে। উপজেলা হাটিকুমরুল গোলচত্ত্বর হয়ে চারমুখি গন্তব্যের মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের পদক্ষেপ ও কঠোর নজরদারীতে সিএনজি, লেগুনা, নছিমন, করিমন, অটো রিকসা ভ্যানের চলাচল বন্ধ হয়েছে। এদিকে মহাসড়কে কম দূরত্বের গন্তব্যের যাত্রীদেরকে নানা দূর্ভোগ আর ভোগান্তির মাঝে চলতে হচ্ছে।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, লগুনা, সিএনজি, নছিমন আটক বিষয়ে গত সোমবার (৮ অক্টোবর) পর্যন্ত ৭২টি মামলা দায়ের ও ২০টির বেশি অটোরিকসা ভ্যান আটক করা হয়েছে। এর আগে আটক করা বিপুল সংখ্যক অটো রিকসা ভ্যান ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, হাটিকুমরুল গোল চত্ত্বর হয়ে নগরবাড়ীমুখি বাঘাবাড়ি পর্যন্ত প্রায় ৩৭ কিলোমিটার মহাসড়ক অংশে হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতা থাকলেও অবৈধ বাহনগুলোর চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়নি। মহাসড়কের এ অংশে পুলিশের নজরদারীর মাঝেই অবৈধ বাহনের চালকেরা অনেকটা চাতুরীপানা করেই তা চালাচ্ছে।

খেঁ^াজ নিয়ে জানা যায়, গোল চত্ত্বর থেকে বাঘাবাড়ী অংশের মাঝামাঝি এলাকার জুংলীপুর এলাকাতেই বেশি সময় হাইওয়ে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়। এতে উল্লাপাড়া-শাহজাদপুরের মধ্যে সরাসরি লেগুনা, সিএনজি, অটোরিকসা ভ্যানের চালকেরা মহাসড়কে ‘ঝামেলা আছে’ চলাচল বন্ধ রাখে। তবে এরা চাতুরি করে উল্লাপাড়া থেকে বালসাবাড়ী এবং তালগাছি থেকে শাহজাদপুর অংশে চলাচল করে থাকে।

এদিকে মহাসড়কে চলমান অবস্থায় কম দূরত্বের গন্তব্যের যাত্রীদেরকে প্রায়ই নানা দুর্ভোগ আর ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বিভিন্ন গন্তব্যে যেতে লোকাল সার্ভিসের বাস গুলোই একমাত্র ভরসা হয়েছে। লোকাল সার্ভিসের বাস গুলোয় কম দূরত্বের যাত্রীদের বাহনে অনিহা দেখানোর অভিযোগ মিলেছে।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুল কাদির জিলানী জানান, মহাসড়কের নগরবাড়ী অংশে নজরদারী আরো বাড়ানো হবে। কোন অবস্থাতেই মহাসড়কে অবৈধ বাহন চলাচল করতে দেওয়া হবে না। থানা হেফাজতে আটক বাহনগুলো বিষয়ে জানান, মামলা নিষ্পত্তি করতে এসে ‘মহাসড়কে আর চালানো হবে না’ স্টাম্পে এমন লিখিত মুচলিকা রেখে বাহন ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে লোকাল বাস সার্ভিসে যেকোন গন্তব্যে যাত্রীদের বহনে বাধ্য এবং ভাড়া বেশি না নেওয়ার বিষয়ে কঠোরভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরপরও এ সব নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগ পেলেই তাৎক্ষনিক পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

"