সোনারগাঁয়ে দুটি সড়ক বেহাল দুর্ভোগে পর্যটক ও স্থানীয়রা

প্রকাশ : ০৯ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

সোনারগাঁ পৌরসভার দুটি সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ পর্যটন কেন্দ্র পানাম নগরীতে প্রবেশে টিপুরদি ও মোগরাপাড়া চৌরাস্তা দুটি একেবারি বেহাল অবস্থা। ফলে এ নগরীতে বেড়াতে আসা পর্যটক ও এলাকাবাসীদের প্রতিদিন চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন ও পানাম নগরে প্রতিদিন দেশ বিদেশের পর্যটক বেড়াতে আসেন। তাছাড়া পৌরসভার অধিকাংশ মানুষ ও পৌর এলাকার বাইরের সনমান্দি ইউনিয়নের মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়ক চিলারবাগ শহীদ মজনুপার্ক। এখান থেকে পানাম নগর পর্যন্ত ও টিপুরদী অঞ্চলের লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের প্রধান ফটক পর্যন্ত দুটি সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই সড়কের মাঝখানে পানি জমে যায়। ফলে যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটে। সড়কগুলোর বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হওয়ায় যানবাহন ধীর গতিতে চলে, ফলে প্রতিনিয়ত যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। যানজটের কারনে পর্যটক ও স্থানীয় এলাকাবাসীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

পৌরসভা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ দুটি সড়কের আয়তন দেড় কিলোমিটার। গত বছর এই সড়ক দুটি মেরামত করা হয়েছিল। বৃষ্টির পানি জমে থাকা ও ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে পুনরায় সড়ক দুটিতে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যার ফলে পৌরবাসী ও পর্যটকদের যাওয়াতে কিছুটা কষ্ট হচ্ছে।

স্থানীয় খাসনগর দীঘিরপাড় গ্রামের বাসিন্দা হারুন রশিদ জানান, প্রয়োজনীয় ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকা ও বিভিন্ন কারখানার ভারী যানবাহন চলাচলের কারনেই সড়ক দুটির মাঝখানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই সড়কের উপর হাটু পর্যন্ত পানি জমে যায়।

ইছাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ফজলুল হক জানান, এ দুটি সড়কের দুরাবস্থার কারনে পর্যটক ও স্থানীয় এলাকাবাসী গত এক বছর ধরে দুর্ভোগে পোহাচ্ছেন।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক রবীন্দ্র গোপ জানান, এ দুটি সড়কের এত দুরাবস্থা যে পর্যটকরা সোনারগাঁয়ে বেড়াতে এসে দুর্ভোগে পড়ে মন খারাপ নিয়ে বাড়িতে ফিরতে হয়। সড়ক দুটি মেরামত করার জন্য আমি পৌর মেয়রকে অনুরোধ জানিয়েছি। কিন্তু কোনো পদক্ষেপ গ্রহন করছেন না পৌর কর্তৃপক্ষ।

পৌরসভার মেয়র সাদেকুর রহমান বলেন, ‘মাত্র এক বছর আগে সড়কগুলো নতুন করে নির্মাণ করা হয়েছিল। বিভিন্ন কোম্পানীর ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে সড়কের এমন অবস্থা। সড়কের যেসব স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সেগুলো দ্রুত মেরামত করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

"