মানিকগঞ্জ ও গাজীপুরে ধর্ষণ মামলায় দুজনের যাবজ্জীবন

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

মানিকগঞ্জ ও গাজীপুর প্রতিনিধি

ধর্ষণ মামলায় মানিকগঞ্জে নন্দ গোপাল সরকার নামের একজনের যাবজ্জীবন কারাদ-ের রায় হয়েছে। এছাড়া তাকে এক লাখ টাকা অর্থদ-ও দেওয়া হয়। দ-প্রাপ্ত নন্দ গোপাল জেলার শিবালয় উপজেলার নিহার চন্দ্র পালের ছেলে। এদিকে গাজীপুরে একটি ধর্ষণ মামলায় আসামী কাজল বর্মনকে যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছেন আদালত। দ-প্রাপ্ত কাজল গাজীপুর সিটি করপোরেশনের হাতিয়াব উত্তরপাড়া এলাকার জ্ঞান মোহন বর্মনের ছেলে। গতকাল বৃহস্পতিবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতর এই রায় দেন। তবে দুই আসামীই জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছে।

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ২০১০ সালে ৭ এপ্রিল ঘিওর উপজেলায় এক নারীকে ধর্ষণের সময় হাতে নাতে ধরা পড়ে নন্দ গোপাল সরকার। পরের দিন ধর্ষণের শিকার ওই নারী ঘিওর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। তদন্ত শেষে একই বছরের ৭ জুন নন্দ গোপাল সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। এই মামলায় মোট ৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য নেওয়া শেষ গতকাল ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ আলী হোসাইন দোষীকে যাবৎজীবন কারাদ- ও আরো এক লাখা টাকা জরিমানা করেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী একেএম নুরুল হুদা রুবেল জানান, সাজাপ্রাপ্ত নন্দ গোপাল সরকার জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছে।

গাজীপুর প্রতিনিধি জানান, আদালত এবং এজাহার সূত্রে জানা গেছে, হাতিয়াব উত্তরপাড়া এলাকার ১৪ বছর বয়সি ভিকটিম ১৯৯৯ সালের ৩১ মার্চ রাতে প্রকৃতিরডাকে সাড়া দিতে ঘর বাইরে বের হয়। আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা আসামী কাজল বর্মণ ভিকটিমকে ছুরির ভয় দেখিয়ে মুখে গামছা বেঁধে পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ভিকটিমের ভাই বাদী হয়ে ওই বছরের ২ এপ্রিল জয়দেবপুর থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তদন্ত শেষে কাজল বর্মণকে আসামী করে অভিযোগপত্র দাখিল করলে ২০১১ সালের ২১ মার্চ চার্জ গঠন হয়। ৭ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও শুনানী শেষে আদালত আসামী কাজল বর্মণকে যাবজ্জীবন কারাদ- দেন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) এম এল বি মেছবাহ উদ্দিন আহমেদ এ দন্ডাদেশ দেন। তবে দ-প্রাপ্ত কাজল বর্মন পলাতক রয়েছে।

"