গোয়ালন্দে আরাধন হত্যার বিচার নিয়ে শঙ্কিত পরিবার

প্রকাশ : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি

রাজবাড়ী গোয়ালন্দে কিশোর আরাধন বিশ্বাস ওরফে বিজয় (১৪) হত্যার ১০৫ দিন পার হলেও বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় নিহতের পরিবার। এ হত্যার বিচারের ভবিষ্যৎ নিয়ে দিন দিন হতাশ হয়ে পড়ছেন মামলার বাদী নিহত আরাধনের মা রাইদাসী বিশ্বাস।

নিহতের পরিবার ও মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গোয়ালন্দ পৌরসভার ক্ষুদিরাম সরকারপাড়ার মৎস্যজীবী লক্ষণ বিশ্বাসের ছেলে আরাধন বিশ্বাস ওরফে বিজয়। সে গোয়ালন্দ বাজার এলাকায় এক সেলুনে চুল কাটার কাজ করত। একই মহল্লার বাসিন্দা নারায়ণ চন্দ্র রাহা ওরফে নারুর ছেলে কাব্য রাহা (১৪) সঙ্গে গত ৪ মে বিকেলে পৌরসভার পদ্মার মোড় এলাকায় কয়েকজন বন্ধু মিলে অরাধন বিশ্বাস ক্রিকেট খেলছিল। এ সময় আরাধনের ব্যাটিংয়ে ক্রিকেট বলটি হঠাৎ ফেটে যায়। এ নিয়ে আরাধনের সঙ্গে কাব্য রাহার প্রচ- বাগবিত-া হয়। একপর্যায়ে কাব্য রাহা ক্ষিপ্ত হয়ে তার হাতে থাকা ব্যাট দিয়ে আরাধনের মাথায় আঘাত করে। এতে আরাধনের মাথা ফেটে যায়। আহত অবস্থায় প্রথমে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরদিন তাকে গত ৫ মে রাতে ফরিদপুর থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ নিহত আরাধনের লাশ গত ৬ মে ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পরে এ ঘটনায় নিহত আরাধনের মা রাইদাসী বিশ্বাস নিজে বাদী হয়ে কাব্য রাহাকে প্রধান আসামি করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার বাদী নিহত আরাধনের মা রাইদাসী বিশ্বাস বলেন, আসামিপক্ষ মামলায় সাক্ষীদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। তিনি আরো বলেন, ‘আমি গরিব ও দিনমজুর বলে কি আমার ছেলের মৃত্যুর সুবিচার পাব না এই স্বাধীন দেশে।’

 

"