ভোলার গৃহহীনরা উপহার পাচ্ছেন ৫১১ ঘর

প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ভোলা প্রতিনিধি

ভোলা সদর উপজেলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে ৫১১টি বসতবাড়ি করে দেওয়া হচ্ছে গৃহহীনদের জন্য। যাদের জমি আছে, ঘর নেই, সদরের ১৩টি ইউনিয়নে এমন ৫১১টি পরিবারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মাধ্যমে এসব গৃহ প্রস্তুত করা হচ্ছে। প্রতিটি ঘর সাড়ে ১৬ ফুট বা সাড়ে ১৫ ফুট করে নির্মাণ হচ্ছে। ঘরগুলোর ফ্লোর পাকা, সামনে খোলা বারান্দা, আরসিসি পিলার, পাশে ও ওপরে টিন দিয়ে নির্মিত হচ্ছে। এ ছাড়া রয়েছে স্যানেটারি ল্যাট্রিনের সুব্যবস্থা।

জানা যায়, প্রত্যেকটি ঘর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ টাকা করে। এর মাধ্যমে সমাজের অসহায়, দরিদ্র ও ভাসমান মানুষের জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হচ্ছে। উন্নয়ন ঘটবে এসব পরিবারের কয়েক হাজার মানুষের জীবনমানের। আর তাই প্রচন্ড খুশি সমাজের অসহায় মানুষগুলো ঘর পেয়ে। এজন্য তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. কামাল হোসেন জানান, সদর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের গৃহহীন পরিবারের চাহিদা মতো স্থানে এসব ঘর করে দেওয়া হচ্ছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে গৃহহীনদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে গৃহ নির্মাণের প্রায় ৫০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এই ঘর প্রাপ্তির ফলে সমাজের অবহেলিত মানুষগুলোর সামাজিক মূল্যায়ন বৃদ্ধিসহ প্রাত্যহিক জীবনের দুর্ভোগ থেকে মুক্তি মিলবে। কাজের গুণগত মান বজায় রাখার জন্য নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে বলেও জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

সরেজমিনে বাপ্তা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের উত্তর চরনোয়াবাদ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, গৃহ নির্মাণের কাজ চলছে। ঘরের মালিক আবুল কালাম (৬০) বলেন, তিনি ক্ষুদ্র চা বিক্রেতা। এতদিন ঘর না থাকায় দোকানেই কোনো রকমে থাকতেন। স্ত্রী আর সন্তানরা থাকতেন অন্যের ঘরে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তাদের ঘর তৈরি করে দেওয়ায় এখন দুঃখের দিন শেষ। সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে থাকতে পারবেন।

স্থানীয় দরিদ্র দিনমজুর মো. মহিউদ্দিন (৩৫)। মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে কোনো রকমের একটি ঝুপড়িঘরে বাস করতেন। অর্থের অভাবে ঘর করতে পারেননি। বর্ষা মৌসুমে ও শীতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট হতো তাদের। এখন প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘরে থাকবেন। আর কষ্ট পেতে হবে না তাদের। এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা।

"