বড়াইগ্রামে ভিজিএফের ৩ ট্রাক পচা চাল ফিরিয়ে দিলেন এমপি

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি

নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়ার সরকারি খাদ্য গোডাউন থেকে ভার্ন্যারেবল গ্রুপ ফিডিং (ভিজিএফ) কর্মসূচির বিতরণের জন্য আনা তিন ট্রাক পচা চাল ফেরত দিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস। গতকাল রোববার সকালে এমপি সরেজমিনে বনপাড়া খাদ্য গোডাউনে নির্ধারিত চালের মান পর্যবেক্ষণকালে এ ঘটনা ঘটে। পাবনার মুলাডুলি সরকারি গোডাউন থেকে আনা তিনটি ট্রাকে ৪৮ টন চাল নষ্ট পাওয়া যায়। এ সময় তিনি ট্রাকসহ চাল মুলাডুলি গোডাউনে ফেরত পাঠান এবং পাশাপাশি অফিসিয়াল প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে চালগুলো ধ্বংস করার নির্দেশ প্রদান করেন।

অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস এমপি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদের আগে দরিদ্রদের জন্য পরিবার প্রতি বিনমূল্যে ২০ কেজি করে ভিজিএফের চাল প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু এ চাল যদি খাওয়ার অনুপযোগী হয় তবে তা হতো অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়। সঠিক ওজনে চাল প্রদান ও চালের মান ঠিক আছে কিনা তা গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। এ চাল বিতরণে কেউ দুর্নীতি করলে তাকে কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না বলে তিনি সতর্ক করেন।

এদিকে খাওয়ার অনুপযোগী চাল কেন বনপাড়া খাদ্য গুদাম পর্যন্ত এসেছে জানতে চাইলে গোডাউনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন জানান, ‘ফাস্ট ইন, ফাস্ট আউট’ সিস্টেমে মুলাডুলি খাদ্য গোডাউন থেকে এই চাল এসেছে। মূলত আট মাস আগে আমন মৌসুমে সংরক্ষণ করা চাল এগুলো। মুলাডুলি খাদ্য গোডাউনে রাজশাহী অঞ্চলের আটটি জেলার চাল সংরক্ষণ করা হয়। এগুলো কোনো এলাকার চাল এটা ওই গোডাউন কর্তৃপক্ষ বলতে পারবে।

মুলাডুলি খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ওমর ফারুক জানান, আমি এক মাস হলো এই খাদ্য গোডাউনে যোগদান করেছি। এর আগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চাকরি থেকে অবসরে গেছেন। তবে কোয়ালিটি পরীক্ষা না করে গোডাউন থেকে চাল সরবরাহ করা ঠিক হয়নি বলে তিনি স্বীকার করেন।

পরে বড়াইগ্রাম পৌর চত্বরে এমপি অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভিজিএফ কার্ডধারী ৩০৮১ পরিবারের মধ্যে মাথাপিছু ২০ কেজি করে চাল বিতরণ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

"